অত্রান্তরে তত্র কলিন্দকন্যাতটোপকণ্ঠং সরণৌ নিষণ্ণঃ।
চিরায় রাধামধুরাধরোষ্ঠে কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো জরতীঞ্জগাদ।।

সূচী

৩৬ – যমুনার ঘাটে নিকটে

যমুনার ঘাটে নিকটে রহিআঁ পথে বিরোধে কাহ্নাঞিঁ।
এ সব গোপ বধূজন লআঁ কথাঁ না যাসি বড়ায়ি।। ১
ছাওয়াল কাহ্নাঞিঁ গোঠ রাখোআল পন্থ বিরোধসি কিকে।
জাএ চন্দ্রাবলী আ….
[ইহার পর ১৬-র পাতা ও ১৭/১-এর পৃষ্ঠা নাই]
পাহাড়ীআরাগ ।। প্রকীণ্ণক লগনী ।। ক্রীড়াতাল ।।

৩৭ – রে কাহ্নাঞিঁ করসি

[১৭/২] রে কাহ্নাঞিঁ করসি তোঁ বল।
একেঁ একেঁ সখিজন সব মোর খল।।
সুণিআঁ বা কি বুলিবে ঘরের গোআল।
মোএঁ আপোঙষ হৈবোঁ তোহ্মে জাইবেঁ মার।। ৩
চরণে পড়িআঁ কাহ্নাঞিঁ বোলোঁ তোহ্মারে।
ছাড় একবার কাহ্নাঞিঁ জাইতেঁ দেহ ঘরে।।
তোর পতি যোগ নহে আহ্মার যৌবন ।
গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ ।। ৪

৩৮ – সিশের সিন্দূর তোর লাসে

সিশের সিন্দূর তোর লাসে। মাথার কেশ সুবেশে।।
আহ্মাকে না চিহ্নসি তোঞিঁ। সব গোপীরঞ্জন কাহ্নাঞিঁ।। ১
দান আহ্মার পরমাণে। এ রাধা ল। না কর মনে আন ভানে।। ধ্রু
ঘৃত দুধ লআঁ তোএঁ যাসী। ধাআঁ ধাআঁ মথুরা পালাসী।।
আহ্মা ছাড়ী জাইবি কোণ পথে। আজি পড়িলা মোর হাথে।। ২
মুঠি এক মাঝা বাএ হালে। তা দেখি মুনিমন টলে।।
ডাকর ডালিম দুঈ কুচে। নান্দসুত কাহ্নাঞিঁকে রুচে।। ৩
সুঝি যাহা মোর সব দানে। নহে দেহ আলিঙ্গন দানে।।
রাধা মোর না কর নিরাশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে ।। ৪
দেশাগরাগ ।। লঘুশেখর ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৩৯ – এগার বৎসরের বালী

আল বড়ায়ি। এগার বৎসরের বালী। যেহ্ন নলিনীদল কোঁঅলী।। ল।।
আল বড়ায়ি। তাক দেখি যার মন জাএ। নিজ দোষে পরাণ হারাএ।। ১
আল বড়ায়ি। কাহ্ন মোকে মাঙ্গে আলিঙ্গনে। পরসিলেঁ তেজিঁবো পরাণে।। ল ।। ধ্রু
একে একে সব সখি জাএ। বাটে কাহ্ন আহ্মাকে রহাএ।।
পরিহাস করে দান ছলে। কাঞ্চলী ভাঁগিতেঁ চাহে বলে।। ২
সব গোপী ছাড়ী বনমালী। মোরে কেহ্নে বোলএ ধামালী।।
খনে চাহে মোরে মাহাদানে। খনেকেঁ বোলএ আলচাচানে।। ৩
সুণ তোএঁ আহ্মার বচন। নিষধহ শ্রীমধুসূদন।।
তেজুক আহ্মার পতিআশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।।৪
ধানুষীরাগ ।। লঘুশেখর ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৪০- সুন্দরী রাধা সুণ সমুখে

সুন্দরী রাধা সুণ সমুখে পুছো মোএঁ হৃষীকেশে।
কথাঁ না বসসি কথাঁ তোর ঘর যাইবে কোমণ দেশে।। ল রাধা।। ১
গোকুলে থাকোঁ মো গোআল জাতী তোহ্মে না পুছহ কিকে।
ষোল শত গোপী পসার সাজিআঁ মথুরা জাওঁ মো বিকে।। ২
ওলাহা রাধা মাথার চুপড়ী দেখোঁ মো তোহ্মার পসারা।
কোণ বথু লআঁ জাহা মথুরা তাহার দেহ বিচারা।। ৩
ঘৃত দধি দুধ আওর ঘোল এসব মোর পসারা।
তোহ্মে না কমণ কারণে কাহ্নাঞিঁ চাহ এহার বিচারা।। ৪
তোএঁ না জাণসি মোএঁ মাহাদাণী এ দান সব আহ্মারে।
ভাণ্ডে ষোল পণ দিআঁ মাহাদান চল মথুরা নগরে।। ৫
বিথর কালে বিথর শুণী হেন বিপরীত বাণী।
অনেক সমএ মথুরার পথে ঘৃত দুধে মাহাদাণী।। ৬
আজলী রাধা তোঁ আবালী বড়ী হের পাঞ্জী পরমাণে।
আপণ চিহ্নিআঁ দিআঁ যাহা দাণ রাখহ আপণ মাণে।। ৭
পুরুবেঁ শুণীএঁ বা রাম রাজ্য সে ভৈল কংসের দেশে।
বসিল অনে কড়ী…
[ইহার পর ১৯/১-এর পৃষ্ঠা নাই]
[১৯/২]মাহাদাণী এত কালে শুণী হেন আচরিজ বাণী।
তোর বাপ মাএ লাজ নাহিঁ তাএ শুণ দেব চক্রপাণী।। ১৬
ক্রোধে কাহ্নাঞিঁ রাধার আঞ্চলে ধরি মনে মনে হাসে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ১৭
গুজ্জরীরাগ।। ক্রীড়া ।। লগনী।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৪১ – তবেঁ বুইলোঁ বড়ায়ি হাটক

তবেঁ বুইলোঁ বড়ায়ি হাটক না জাইব দুর্জ্জন মথুরা পুরী।
বোল দিআঁ তোএঁ মোরে আণিলেঁ মোর আন্তরের বৈরী।।
ঘৃত দধি সব খাইল কাহ্নাঞিঁ ণাম্বাআঁ মোর পসারা।
কাঞ্চুলী ভাঁগিআঁ তন বিগুতিল ছিঁড়ি সাতেসরী হারা।।
কোণ বিধাতাএ মোক গঢ়িলেক কত লিখি দুখভারে।
সুখ ভুঞ্জিতেঁ মো কোহ্নো না পাইলোঁ দুখেঁ গেল সব কালে।।ধ্রু
অনন্ত জরমেঁ গুরু ব্রাহ্মণেরেঁ দিলোঁ নানা দুখভারে।
তেকারণে বিধি … দুখগণ লেখিল সাঠীহারে।।
কইলোঁ খণ্ডব্রত আর জরমত তেঁ বা দুখিনী মোএঁ।
ললাটে লিখিত খণ্ডন না জাএ না ছাড়ে নান্দের পোএ।। ২
জরম গেল করমের খঅ কাল কাহাঞিঁর হাথে।
মুকুট ভাঁগিআঁ সব পেলাইবোঁ সিন্দূর মুছিবোঁ মাথে।।
কিবা চাহে কাহ্ন বাটে রহাএ বুঝিতেঁ নারোঁ তার মণে।
রাজা কংসাসুর আতি দুরুবার সে জণি এহাক শুণে ।। ৩
এড়ু দামোদর ঝাঁট জাওঁ ঘর দিআরু মোকে মেলানী।
রাজা কংসাসুর সুণিলেঁ পাছেঁ ফল পাইবেঁ চক্রপাণী।।
উলটি বসিআঁ সুন্দরি রাধা ছাড়এ দীর্ঘ নিশাসে।।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং ।
প্রাহ মুক্তাঞ্চলং কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৪২ – রাধে যে বোল বুলিলোঁ মণে না

রাধে যে বোল বুলিলোঁ মণে না ধরিলেঁ উলটিআঁ দিলেঁ পিঠী।
সুচক রুচক কুচের বাটুল তাতা পড়ি গেল দিঠী।।
দিঠী দিঠী চিত্ত মজিআঁ গেল তোর আনুমতী জীওঁ।
সংপুন্ন চন্দ্র তোহোর বদন আধারে আমিআঁ পীওঁ।। ১
রাধে তেজ ভয় মান রাগে।
গএ গদাধর প্রেয়াগে মাধব তোকে আলিঙ্গন মাঙ্গে।। ধ্রু
কত না রাগ রাধা আছরে মনে না চাহ সমুখ দিঠী।
এ রূপ যৌবন কত নেহালসি হাথের শিরি আঙ্গুঠী।।
এ রূপ যৌবন সব থীর নহে মনে ভাব গোআলী।
রতি উপভোগে সফল কর পরিতোষ বনমালী।। ২
তোহ্মে পদুমিনী আহ্মে পদ্মনাভ এহা গুন মনে মনে।
বএসেঁ জ্যেষ্ঠ কুলেহোঁ শ্রেষ্ঠ কিকে পরিহর কাহ্নে।।
আহ্মা পরিহরিলেঁ ভাল না পাইবেঁ পাছেঁত পাইবেঁ দুখে।
এ রূপ যৌবন পাছা না জাইবে তুলি চাহা মোর মুখে।। ৩
তোর পাঅ দেখি রাতা উতপল লাজে লুকাইল জলে।
তোহ্মার গমন দেখি রাজহংস গতি করিল সলিলে।।
দেবাসুর নর ঈশর কাহ্নের না ভাঁগে আশে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৪৩ – এক ভাল না বোলে নিলজ

এক ভাল না বোলে নিলজ চক্রপাণী। রতি পতিআশে ভৈল পথে মহাদাণী।।
ষোল শত গোপী জাএ আপণ ইছাএ। দারুণ করম দোষে আহ্মাকে রহাএ।। ১
পরাণে বড়ায়ি মোর কর প্রতিকার। তোর পরসাদেঁ ঘর জাঁও একবার।। ধ্রু
তার গোত মুণ্ডিলেক আহ্মার যৌবনে। কিসকে বাখানে কাহ্ন মোর দুঈ তনে।।
চির কাল জীউ মোর সামী আইহন। আনুপাম বল বীর মতীএঁ গহন।। ২
সব খন পরদারে উদগত মতী। এতেকেঁ বুঝিল তার বড় কুল জাতী।।
তা সমে নাহিঁক বড়ায়ি মোর কোণ বোল। মিছা নঠ করে কাহ্ন মোর ঘৃত ঘোল।। ৩
খণ্ডউ সব জঞ্জাল আর ঠেঁঠা দান। মিছা কেহ্নে করে কাহ্নাঞিঁ মোর আপমান।।
তার পতি যোগ নহে আহ্মার যৌবন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
ভাঠিআলীরাগ ।। রূপক ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৪৪ – বাটদান হাটদান লইলোঁ রাজঘরে

বাটদান হাটদান লইলোঁ রাজঘরে। তেকারণে আইলোঁ মোএঁ যমুনার তীরে।।
নিতি নিতি যাহা তোহ্মে মথুরা নগরে। সব সুবিধান দান দেহ ত আহ্মারে।। ১
দিবেহেঁ দধির দাণ সুনহ গোআলীনী। কংসের বিষএ আহ্মে হইএ মাহাদাণী।। ল ।। ধ্রু
দেহ দধি ঘৃত দান যত হএ লেখে। পসারের দান দিআঁ যাহা একে একে।।
অভরস না কর সত্য আহ্মে বুইল। তোহ্মার কারণে আহ্মে মাহাদাণ লইল।। ২
আহ্মার বচন তোহ্মে শুন শশিমুখী। নেহত লাগিআঁ শত পঞ্চাস উপেখী।।
এহা জাণী মোকে দেহ আলিঙ্গন দানে। আপণ গৌরব রাধা রাখহ আপণে।। ৩
লেখা করে কাহ্নাঞিঁ আপণে খড়ী পাড়ী। বাকী ভৈল রাধা তোতে নব লক্ষ কড়ী।।
হএ নহে রাধা আপণে লেখা কর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবর।। ৪
আহেররাগ ।। একতালী ।।

৪৫ – পুরুব কালত ঋষিএঁ বুইল

পুরুব কালত ঋষিএঁ বুইল। বসুলে নিআঁ নান্দোঘরে থুইল।।
জাণইবোঁ কারে এ সব কাজে। সত্যেঁ লইব কাহ্নাঞিঁ মথুরার রাজে।। ১
বুলিআঁ পাঠাইবোঁ দুখ সমাদে। কাহ্ন মাহাদানী লাগিল বাদে।। ধ্রু
বারেঁ বারেঁ মোএঁ বুইলোঁ ভজিআঁ। কংসে শুণী আসিব সাজিআঁ।।
শুণীএ যবেঁ সে আইহন বীর। করতেঁ তোহ্মা করিব চীর।। ২
এভোঁ কাহ্ন তোঁ মোর বোল শুন। আপণে আপণ হৃদয়ে গুণ।।
ছাড় তোঁ আহ্মার দানের আশে। বাসলী বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৩
পাহাড়ীআরাগ ।। রূপক ।।

৪৬ – বারহ বরিষেকের মোর মাহাদান

বারহ বরিষেকের মোর মাহাদান। শুণ তোহ্মে আল রাধা পাঁজী পরমান।। ১
নিতি দধি বিকে জাওঁ মথুরার হাটে। মিছাই কাহ্নাঞিঁ তোঁ আগোলসি বাটে।। ২
আতি বিতপনী রাধা পরিধান পাট। আলকে তিলক তোর শোভএ ললাট।। ৩
বড়ার বহুআরী আহ্মে বড়ার সভাএ। কার কাঁচ আলিতে না দেওঁ মোএঁ পাএ।। ৪
বারহ বরিষের দাণ সুনহ মুগধী। মোহোর করমেঁ তোহ্মা আণি দিল বিধী।। ৫
রাখোআল কাহ্নাঞিঁ তোর রাখোআল মতী। পাঁতরে একসরী পাইলেঁ নিমাথিতী।। ৬
রাখোআল হআঁ তোর কংসের গোসাঞিঁ। ত্রিভুবনে আহ্মাসম আর বীর নাহিঁ।। ৭
কাহাক দেখাহ তোহ্মে এত বীরপণে। টাকারের ঘাএ কংসের লইব পরাণে।। ৮
তোর কংসে মোর কিছ করিতেঁ না পারে। তোহ্মারি সে রূপেঁ মোরে মারিবারে পারে।। ৯
না বোল না বোল কাহ্নাঞিঁ হেন পাপবাণী।
তোহ্মে ভালে জাণো আহ্মে আইহনের রাণী।। ১০
বারহ বরিষেকের দিআঁ যাহা দাণে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ১১
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।। লগনী ।।

৪৭ – কেহ্নে দান না দিবেঁ তোঁ কেহ্নে জাইবেঁ

কেহ্নে দান না দিবেঁ তোঁ কেহ্নে জাইবেঁ হাটে। কেহ্নে নাগরি রাধা ছাড়ী দিবোঁ বাটে।।
সব কুতঘাটে রাধা মোর মাহাদান। হএ নহে দেখ রাধা পাঞ্জী পরমান।। ১
বারহ বরিষের দান দিবেহেঁ গোআলী। তোর রূপ যৌবনে মোহিল বনমালী।। ধ্রু
স্বগ্‌গে রাখোঁ মর্ত্যে রাখোঁ তলে পাওঁ সুধী। তাহাতে টেটনী রাধা কি করিবি বুধী।।
এ তীন ভুবনে রাধা মোর মাহাদাণে। তাক ভাঁগি জাএ রাধা কাহার পরাণে।। ২
যশোদার পোঅ আহ্মে হাথে ধরী বাঁশী। তোহ্মাক দেখিল রাধা আধিক রূপসী।।
তেকারণে রাধা মোর তোতে গেল মন। ছাড়ি দিলোঁ দান ধর আহ্মার বচন।। ৩
এভোঁ যবেঁ না ধরিবেঁ আহ্মার বচন। বলে ধরি তোকে তবেঁ দিবোঁ আলিঙ্গন।।
এহা বুঝি দেহ রাধা সরস বচন। গাইল রড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।।

৪৮ – এহে। সকল বএসে মোর এগার বরিষে

এহে। সকল বএসে মোর এগার বরিষে। বারহ বরিষের দান চাহ মোরে কিসে।।
এতেকেঁ বুঝিল তোর কাজের ভাষ। লোক সুণিলে তোকে হৈব উপহাস।। ১
পন্থ ছাড়ি দেহ কাহ্নাঞিঁ বিরোধ না কর। তোর পুণ্যেঁ জাওঁ বিকে মথুরা নগর।। ধ্রু
নাগরশেখর তোহ্মে নামে বনমালী। তোর যোগ নহোঁ মোএঁ আতিশয় বালী।।
আধিক পীড়এ যবেঁ ভূখিল ভষলে। তভোঁ নাহিঁ পাএ মধু কমলমুকুলে।। ২
বড়ার বহুআরী আহ্মে বড়ার ঝী। মোর রূপ যৌবনে তোহ্মাতে কী।।
দেখিল পাকিল বেল গাছের উপরে।
আরতিল কাক তাক ভখিতেঁ না পারে।। ৩
রতিকথা সখিমুখে না শুণীলোঁ কানে। বারেক রাখহ কাহ্নাঞিঁ আহ্মার সমানে।।
চরণে ধরোঁ তোর দেব নারায়ণ। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
রামগিরীরাগ ।। আঠতালা ।।

৪৯ – এ তোর নব যৌবনে

এ তোর নব যৌবনে। দেখি মোর মজি গেল মনে।।
এবেঁ তোকে দেখিএ রূপসে । তেঁএ মোর বাঢ়িল আশে।। ১
দেহ মোরে সরস বচনে। আমিআঁ পিঊক মোর কানে।। ধ্রু
চাহ মোরে মুখশশি তুলী। তোহ্মে রাধা আহ্মে বনমালী।।
তোর মোর ভৈল পরিচএ। এবেঁ পরিহর তোহ্মে ভএ।। ২
তোতে মোর হএ যত দানে।। তাক দিতেঁ নাহিঁ তোর ধনে।।
এহা আপণে গুণী মনে। কর মোর সফল বচনে।। ৩
এ তোর প্রথম বএসে। তোর দেহে বসে বড় রসে।।
দাণী ভৈলোঁ তাহার আশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
গুজ্জরীরাগ ।। যতি ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৫০ – চাঁপাকুঁটী দেখিতে রূপসে

আল বড়ায়ি।
চাঁপাকুঁঢ়ী দেখিতে রুপসে। তাত নাহিঁ গন্ধের পরসে।।ল।।
বিকসিলেঁ মোহে মুণিমণে। হেন সব নারীর যৌবনে।। ১
কি না মোক ভৈল এত কালে। মাহাদাণী ভৈগেল গোকুলে।। ধ্রু
অনেক কড়ীর পসারা। হাট জাইতেঁ না পাইলোঁ মথুরা।।
রাজা কংসে করিবোঁ গোআরী। তবেঁ কাহ্ন লআঁ যাবোঁ ধরী।। ২
নিতি নিতি দধি বিকে জাওঁ। দাণের সুধী নাহিঁ পাওঁ।।
এবেঁ রাজা ধনের কাতর। চাহে যবেঁ দুধে দিবোঁ কর।। ৩
সখি সাত পাঁচ করি সঙ্গে। মথুরাক জাওঁ বিকে রঙ্গে।।
কেহ্নে কাহ্ন হেন পড়িহাসে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
ধানুষীরাগ ।। একতালী।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরং কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৫১ – বদনকমল তোর যবেঁহ দেখিলোঁ

বদনকমল তোর যবেঁহ দেখিলোঁ। তবেঁ হৈতেঁ রাধা তোতে মন দিলোঁ।।
আঅর দেখিলোঁ নাসা গরুড় সমান। গিধিনীসদৃশ তোর দেখোঁ দুঈ কান।। ১
তোর রূপ যৌবনে মোহিল দেব কান। সব কলা সংপুনী তোঁ দেহ মধুপান।। ধ্রু
কুরঙ্গনয়ন জিণী তোহ্মার নয়নে। আধর বন্ধুলী গণ্ড মধুক সমানে।।
মাণিক জিঁণিআঁ তোর দশনের পাঁতী। কনয়া নিকয় তোর দেহের কাঁতী।। ২
তালফল জিণিআঁ তোহ্মার পয়োভার। মাঝদেশ দেখি সিংহমাঝার আকার।।
লোভেঁ নাভীতলে বসে তীন রূপ বলী। উরু শোভে বিপরীত রামকদলী।। ৩
থলকমল জিণী তোহ্মার চরণে। রাজহংস জিণী তোহ্মার গমনে।।
ভোলে পড়ি গেল তাত নান্দের নন্দন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
রামগিরীরাগ ।। আঠতালা।।

৫২ – তোর রূপ দেখি মোর চিত নহে থীর

তোর রূপ দেখি মোর চিত নহে থীর। প্রাণ যেহ্ন ফুটি জাএ বুক মেলে চীর।। ১
যার প্রাণ ফুটে বুকে ধরিতেঁ না পারে। গলাত পাথর বান্ধী দহে পসী মরে।। ২
তোহ্মে গাঙ্গ বারানসী সরুপেঁসি জাণ। তোহ্মে মোর সব তীত্থ তোহ্মে পুণ্যস্থান।। ৩
এ বোল বুলিতেঁ কাহ্ন না বাসসি লাজ। তোহ্মার মাঊলানী আহ্মে শুণ দেবরাজ।। ৪
হইএ আহ্মে দেবরাজ তোহ্মে মোর রাণী। মিছাই সম্বন্ধ পাত ভাগিনা মাঊলানী।। ৫
এ বোল বুলিতেঁ তোর মণে বড় সুখ। পরঘর পাইসে যেহ্ন চোর পাটাবুক।। ৬
ভাল বোল বুলিলি তোঁ চন্দ্রাবলী রাণী। আহ্মার মণের কথা কহিলেঁ আপুণী।। ৭
বিরহে পুড়িআঁ কাহ্ন হাকল বিকল। জরুআ দেখিআঁ যহ্নে রুচক আম্বল।। ৮
জাইবার বাসনা তোহ্মে ছাড়হ গোআলী। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বন্দিআঁ বাসলী।। ৯
মালবরাগ ।। রূপক।। লগনী।।

৫৩ – মেদনি যোড়িলো হালে।

মেদনি যোড়িলো হালে। কৌণোঁ ব্রহ্মার দণ্ড যোঁআলে।।
গোআলী বান্ধিলোঁ বাসুকী দড়া। গিরি করিলোঁ মোথড়া গোবালী।। ১
জাইবার বাসনা তেজ গোআলী। কাহ্ন মাহাদাণী তোরে ল বালী।। ধ্রু
বৃন্দাবন মোর থানে। বংশ বাজাওঁ গানে।।
না কর তোঁ মন আনে। আহ্মে অসুরদল কাহ্নে।। ২
সুমেরু আহ্মাক গঢ়ে। তার শৃঙ্গে মোর মেঢ়ে।।
নাম মোর বনমালী। হেলেঁ দলিবোঁ কালী।। ৩
গোকুলে গোজাতী। দেহ আহ্মারে সুরতী।।
তেজহ জাইবার আশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
দেশাগরাগ ।। রূপক ।।

৫৪ – এক ঠাঁই বাঢ়িলাহোঁ নান্দের ঘরে

এক ঠাঁই বাঢ়িলাহোঁ নান্দের ঘরে। চণ্ডাল কাহ্নাঞিঁ এবেঁ বল করে।।
দিঠিত পড়িলে বাঘত হএ লাজ। সোদর ভাগিনা হআঁ হেন তোর কাজ।। ১
কাহ্নাঞিঁ লাজ নাহিঁ তোরে।
লাজ না বাসসি তোএঁ গোকুল কাহ্ন। সোদর মাউলানীত সাধ মাহাদান।। ধ্রু
জীবার উপায় নাহিঁ বোল মাহাদানী। বাছিআঁ পাইলি সোদর মাউলানী।।
পোএর মুখে পরবত টলে। গুরু সাপে বেঢ়িলের আলপ কালে।। ২
বারেঁ বারেঁ কাহ্ন মোঁ দধি বিকে জাওঁ। সমুচিত দান ঘাট তোর না ভাঙ্গাওঁ।।
কিসের কারণে তোঁ এবেঁ করসি বল। বাপ মাএ গালি তোরেঁ দিবোঁর বিথর।। ৩
পুরাণ আগম বেদ করহ বিচার। দেখ পাপ হএ কৈলেঁ পরদার।।
যত কিছ বোলোঁ মোএঁ সব পরমাণে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ৪
গুজ্জরীরাগ ।। রূপক ।।

৫৫ – বাপ বসুল মোর নান্দোঘরে জাণী

বাপ বসুল মোর নান্দোঘরে জাণী। কমণ কারণে রাধা ঘোসসি মাঊলানী।।
মাঅ দৈবকী মোর মামা কংসাসুর। তোহ্মার সম্বন্ধ কথা আনেক দূর।। ১
নহসি মাঊলানী রাধা সম্বন্ধে শালী। রঙ্গে ধামালী বোলে দেব বনমালী।। ধ্রু
মাউলানী মাউলানী বেলসি তুণ্ডে। মোর মাহাপাতক পড়ু তোর মুণ্ডে।।
হেন যবেঁ রাধা বোলসি আর বার। ভাণ্ড ভাঁগিব তোর কাহ্নাঞিঁ গোআল।। ২
কিকে তোঁ নাগরি রাধা উপেখসি সুখ। মুখ তুলী চাহা মোর পালাঊক দুখ।।
উন্নত পয়োধরেঁ ধরি মোরে চাপ। পালাউ আহ্মার বিরহ সন্তাপ।। ৩
কে তোকে জাণাইলে মাঊলানী সম্বন্ধ। দুঈ আখি খাঊ পড়ুক তার কন্ধ।।
শালী সম্বন্ধে সম্বোধ নারায়ণে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ৪
গুজ্জরীরাগ ।। যতি ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধা ভয়াভয়াতুরা।
জগাদ জরতী কিঞ্চিত কিঞ্চিচ্চ মধুসুদনং।।

৫৬ – মাউলানীর যৌবনে কাহ্নের মন

মাউলানীর যৌবনে কাহ্নের মন। বিধুমুখে বোলেঁ কাহ্নাঞিঁ মধুর বচন।।
সম্বন্ধ না মানে কাহ্নাঞিঁ মোকে বোলে শালী। লজ্জাদৃষ্টি হরিল ভাগিনা বনমালী।। ১
কি না বিধি আগ বড়ায়ি লেখিল কপালে।
ভাগিনা সুরতি মাঁগে দানের ছলে।। ধ্রু
ভাগিনা সদৃশ গুরু নাহিঁক শয়ালে। কিকে কাহ্নাঞিঁ বল করে এ কুঞ্জ ময়ালে।।
ভাগিনাকে দেখি বড়ায়ি দেবতা সদৃশে। মোর কর্ম্মদোষে কাহ্নাঞিঁ হেন পড়িহাসে।। ২
দানের আন্তরে কাহাঞিঁ বুলুক বচন। দান লৈতেঁ নাহিঁ মণ কিসকে যতন।।
ধামালী সহিত কাহ্নাঞি বোলে তিখ বাণী। হেনমতেঁ বিগুতিলে সোদর মাঊলানী।। ৩
দেহে বৈরি হৈল মোকে এ রূপ যৌবন। কাহ্ন লজ্জা হরিল দেখিআঁ মোর তন।।
রতি লাগি বল করে নান্দের নন্দন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
রামগিরীরাগ ।। আঠতালা ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৫৭ – বারেঁ বারেঁ রাধা বোলসি আহ্মেত

বারেঁ বারেঁ রাধা বোলসি আহ্মেত তোর মাঊলানী।
আহ্মার বৈরি কংস রাঅ তোক মারিব সম্বন্ধ শুণী।।
আপণাক রাখি যে কাজ করে তাক বুলিএ সিআনী।
এহা জাণী না পরিহর রাধা আহ্মে দেব চক্রপাণী।। ১
রাধা তোর তনু দরশনে।
নান্দের নন্দন ভোলে পড়িলা বাহু ভিড়ি দেহ আলিঙ্গনে।। ধ্রু
রসময় সকল শরীর তোর ভইল নহুলী যৌবনে।
পাকিল শ্রীফল জিণিআঁ শোভে তোর দুই তনে।।
তাক দেখি উনমত ভৈলোঁ আন নাহিঁ পড়িহাসে।
কর আনুমতী নাগর কাহ্নাঞিঁ জীঊক তার পরসে।। ২
মিছাই রাধা পাতসি সম্বন্ধ মিছাই করসি লাজে।
মন থীর করি ধর মোর বোল লাজে সে হারায়ি কাজে।।
আনেক সময় যৌবন যে নারী আপণ শরীরে শাঁচে।
আতি সে আবুধি ভোগ পরিহরি আপণে আপণা বঞ্চে।। ৩
যাহার যৌবন নর উপভোগে সেহি সে নাগরী ভালী।
ভ্রমর সঙ্গম পাইলেঁ শোভএ যেহ্ন বিকসিত মাহ্লী।।
এহা পরিহরি নাগরি রাধা আহ্মা না কর নিরাসে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

৫৮ – কেহ্নে তোহ্মে মোরে বোল শালী

কেহ্নে তোহ্মে মোরে বোল শালী। সম্বন্ধ না মান ভাগিনা বনমালী।।
তোর বোল মোত নাহিঁ সাজে। আলপ বএসে খাইলি লাজে।। ১
যদি গাঙ্গ উজান বহে। তভোহোঁ তোহ্মার বোল নহে।। ধ্রু
নিজ সামী আছে মোর ঘরে। তাহাকো না কর তোহ্মে ডরে।।
আতি বড় হৈলা আছিদর। আপণা চিহ্নিআঁ জাহ ঘর ।। ২
সে সি নারী যে হএ সতী। যাক উপভোগে নিজ পতী।।
রস নাহিঁ পরার পুরুষে। যার উপভোগে কুল নাশে।। ৩
সুঁঅরী আপণ কুল জাতী। দূর কর পাপত মতী।।
ছাড়হ আহ্মার পতিআশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
ধানুষীরাগ ।। একতালী ।।

সতীত্বং তব বিজ্ঞাতং রাধিকে বদ মাধিকং।
অধুনা মম দানস্য গণনায়াং মনঃ কুরু।।

৫৯ – হাথে খড়ী করী বোলেঁ মো কাহ্ন

হাথে খড়ী করী বোলেঁ মো কাহ্ন। আইস ল রাধা লেখা করি দান।। ১
আহুঠ হাথ কলেবর তোর। দুই কোটি দান তাহাত মোর।। ২
মাথাত কুসুমমাল রচনে। এহাত আহ্মার লক্ষক দানে।। ৩
চামর জিণিআঁ চিকুর তোরে। এহার দান দুঈ লাখ মোরে।। ৪
সিসের সিন্দূর ভুবন মোহে। এহার দান তিন লক্ষ হএ।। ৫
নির্ম্মল শশি তোর মুখ দেখোঁ। এহার দান চারি লাখ লেখোঁ।। ৬
নীল উতপল তোর নয়নে। এহাত মোর পাঞ্চ লাখ দানে।। ৭
গরুড় সমান তোহোর নাশা। এহাত ছয় লক্ষ দানের আশা।। ৮
শ্রবণ কুণ্ডল শোভএ তোরে। এহার দান সাত লক্ষ মোরে।। ৯
মাণিক জিণিআঁ দশন শোহে। এহার দান আঠ লাখ নহে।। ১০
বিম্বফলতুল তোর আধরে। নব লক্ষ দান তাত আহ্মারে।। ১১
কণ্ঠদেশ তোর কম্বু সমানে। দশ লক্ষ হএ এহাত দাণে।। ১২
বাহু মৃণাল কমল করে। এগার লক্ষ দান তাহারে।। ১৩
নখপাঁতি তোর চন্দ্রিকা জিণে। বার লক্ষ হএ এহার দানে।। ১৪
শ্রীফলযুগল তোহোর তনে। এহার দান তের লক্ষ ধনে।। ১৫
ত্রিবলি মাঝা বাএ হালে তোরে। চৌদ লক্ষ দান এহাত মোরে।। ১৬
উরু তোর রামকদলী সমানে। পঞ্চদশ লক্ষ এহার দানে।। ১৭
পদযুগ থলকমল আকারে। ষোল লক্ষ দান তাহাত আহ্মারে।। ১৮
হেম পাট জিণি তোহোর জঘনে। চৌষাঠ লাখ তাত মোর দানে।। ১৯
বিণি দান দিআঁ নাহিঁ গমনে। বোলে দামোদর সত্য বচনে।। ২০
মাথাএ বন্দিআঁ বাসলীপাএ। আনন্ত বড়ু চণ্ডীদাস গাএ।। ২১
কোড়ারাগঃ ।। দণ্ডক ।।

৬০ – কিসের দান কাহ্নাঞিঁ কিসের ঘাট

কিসের দান কাহ্নাঞিঁ কিসের ঘাট। কিসের আন্তরে কাহ্নাঞিঁ আগোলসি বাট।।
মিছা খড়ি পাড় কাহ্নাঞিঁ কপট নাটে। কংশে শুণিলেঁ পড়ি যাইবেঁ টাটে।। ১
কি মোর ঝগড় ভৈল মথুরার পথে। পাঁজী পুথী তোহ্মার চিরিবোঁ বাম হাথে।। ধ্রু
রাখোয়াল কাহ্নাঞিঁ তোতে হেন বোল সাজে। বড়ার বহুআরী আহ্মে পাইএ বড় লাজে।।
এ সব চরিতেঁ তো নাসিলি দুঈ লোকে। কমণ মুগধেঁ বাটে দানী কৈলে তোকে।। ২
মিছে কেহ্নে চক্র কাহ্নাঞিঁ করহ বাখান। কথাঁহো নাহিঁ শুণী দেহত বসে দান।।
ঘৃত ষোল দধি দুধ পসারত জাএ। এহাতে সি দান লইতেঁ তোহ্মার জুআএ।। ৩
অইহন বীর তিন লোকেঁ ভালে জাণী। তোহ্মে কি না চিহ্ন আহ্মে তাহার রাণী।।
কি না লাভ লোভেঁ কাহ্নাঞিঁ না চিহ্ন এখন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
কেদাররাগ ।। রূপক ।।

৬১ – শরত উদিত চান্দ বদনকমল

শরত উদিত চান্দ বদনকমল। খঞ্জন জিণিআঁ তোর নয়নযুগল।।
আধরে বন্ধুলীরাগ শোভএ সুন্দরী। হেন রূপেঁ কাহ্নাইকে কেহ্নে পরিহরী।। ১
আলিঙ্গন দিআঁ যাহা সুণ ল সুন্দরী। তোহ্মাতে মজিল চিত ধরিতেঁ না পারী।। ধ্রু
শ্রবণে শোভএ তোর রতন কুণ্ডল। কুচযুগ শোভে যেহ্ন শ্রীফলযুগল।।
তথিত উপর শোভে হার মঞ্জরী। তা দেখিআঁ প্রাণ রাধা ধরিতেঁ না পারী।। ২
যশোদার পোঅ আহ্মে নামে গোবিন্দ। তোর রূপ দেখিআঁ চখুতে নাইসে নিন্দ।।
কাঞ্চুলী ঘুচাআঁ রাধা দেহ মোরে কোল। তোর দুই তনে লাগু রসের হিলোল।। ৩
আহ্মা সমে নেহ রাধা বড় পুণ্যে পাইএ। আহ্মা সমে যোগ সত্যেঁ সুরপুর জাইএ।।
এহাক জাণীআঁ রাধা পুর মোর আশ। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাস।। ৪
পাহাড়ীআরাগঃ।। ক্রীড়া ।।

৬২ – প্রথম যৌবন মোর মুদিত ভাণ্ডার

প্রথম যৌবন মোর মুদিত ভাণ্ডার। হৃদয়ে কাঞ্চুলী গজমুকুতার হার।।
এহা আভরণ কাহাঞিঁ সব মোর নে। বেরি এক কাহ্নাঞিঁ মোক ঘর জাইতেঁ দে।। ১
না জাণো সুরতি কাহ্নাঞিঁ না ধরো মোঁ দান।
মিছাই কাহ্নাঞিঁ মোর লইভেঁ পরাণ।। ধ্রু
এগার বরিষে কাহ্নাঞিঁ বার নাহিঁ পুরে। আহ্মা দুখ দিতেঁ কাহ্নাঞিঁ কেহ্নে হেন ফুরে।।
এক বার ছাড়ী দুই বার নাহিঁ মরী। রাজা কংসাসুরে মোএঁ করিবোঁ গোহারী।। ২
শঙ্খ চক্র গদা আর শারঙ্গ এড়িআঁ। দান সাধ কেহ্নে কাহাঞিঁ পথত বসিআঁ।।
বারেক এড়িআঁ দেহ জাওঁ মোএঁ ঘর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবর।। ৩
ধানুষীরাগ ।। রূপক ।।

৬৩ – মুখ তোর আল রাধা বিকচ কমলে

মুখ তোর আল রাধা বিকচ কমলে। নয়ন তোর নীল উতপলে।।
মাণিক জিণিআঁ তোর দশনের যুতী। সিন্দূরে লোটাইল যেহ্ন গজমুতী।। ১
সুন্দরি রাধা ল তোহ্মাতে মণ গেল। হের প্রাণ ধরণ না জাএ।। ধ্রু
দুঈ কুচ তোর রাধা শম্ভুর আকার। তথি চিত্ত মজিল আহ্মার।।
তা দেখিআঁ সব খন না পাওঁ সোআথ। অনুমতি কর দেওঁ হাথ।। ২
সিংহ জিণী তোর আতি মাঝা খিনী। দুঈ উরু রামকল জিণী।।
চরণ থলকমল মন্থর গমনে। নেত বসন পরিধানে।। ৩
কনক নিকস সম তনুকান্তি লীলা। দেখি ভোল গেল নান্দোবালা।।
দাণ সাধিএ রতি পতিআশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
ধানুষীরাগ ।। একতালী ।।

৬৪ – এত কাল জাইএ আহ্মে মথুরার হাটে

এত কাল জাইএ আহ্মে মথুরার হাটে। কভোঁ না দেখিল কাহ্নাঞিঁ দানী এহা বাটে।।
এবেঁ বাটে বাটোআড় হৈলা কাহ্নাঞিঁ। পাপ বুলিতেঁ তোর মুখে লাজ নাহিঁ।। ১
ছাড়হ নিলজ কাহ্নাঞিঁ হেন পাপ বাণী। আহ্মে শিশুমতী রতিকথাহো না জাণী।। ধ্রু
মোর রূপ দেখি নহ বিকল মুরারী। পরধন দেখিলেঁ কি পাএ ভিখারী।।
উনমত সদৃশ কেহ্নে বোলহ বচন। এহা বুঝি নিবারিআঁ থাক নিজ মন।। ২
পথত লইলি যবেঁ দান আধিকার।। তবেঁ কেহ্নে তোতে হেন মদনবিকার।।
তিল এক মোর মনে নাহিঁ রতিরঙ্গ। আহ্মা ছাড়ী আন নারী কর তোহ্মে সঙ্গ।। ৩
এত বড় কেহ্নে কাহ্নাঞিঁ দেহ মোরে দুখ। মুখ তুলী না দেখোঁ আর তোর মুখ।।
এভোঁ পরিহর কাহ্নাঞিঁ আহ্মার আশে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪

রামগিরীরাগ।। আটতালা।।

৬৫ – ঘৃত দধি দুধেঁ পসার সাজিআঁ

ঘৃত দধি দুধেঁ পসার সাজিআঁ মথুরাক যাসি বিকে।
সহজে রূপসী নব যুবতী লাস বেশ তোর কিকে।।
হেন রূপ দেখি চখু আড় করে পশুআ তোর গোআলা।
আছ নর লোক দেব লোক তোষে মুনিমন হএ ভোলা।। ১
রাধা মুখ তুলি চাহা রঙ্গে।
নাগর কাহ্নাঞিঁ পথে বিরোধে কি করিব তোর খঙ্গে।। ধ্রু
কপোলযুগলে শোভএ তোর বিচিত্র মণি কুণ্ডলে।।
সংপূণ্ণক চান্দের দুঈ পাশে যেহ্ন উইল সুরুজ মণ্ডলে।।
সুনিআঁ সরস আমিআঁ আধিক তোর মধুর বচনে।
নান্দের নন্দন ভোলে পড়িলা বাহু ভিড়ি দেহ আলিঙ্গনে।। ২
পরিধান তোর সুরঙ্গ পাটোল ধিরে যাসি বাটে।
আর আদভূত দেখোঁ চন্দ্রাবলী সিন্দূর সুর ললাটে।।
নিতি নিতি যাসি দধি দুধ বিকে পএর বাজে নূপুরে।
আজি পড়িলা কাহ্নের হাথে লাস বেশ করে চুরে।। ৩
বার বৎসরের তোএঁ সি বালী বিচিত্র কাঞ্চলী শোভে।
গিএ তোর মুকুতার হার তা দেখি কাহ্নাঞিঁর লোভে।।
ছাড়িল রাধা তোর দধির দাণ দেহ চুম্ব আলিঙ্গনে।
অনন্ত বড়ু চণ্ডীদাস গাইল দেবী বাসলীচরেণে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। রূপক ।।

নিপীয় কৃষ্ণবচনং রাধিকাধিমতী সতী।।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৬৬ – লুনীর পুতলী যেহ্ন বড়ায়িল লো রৌদে

লুনীর পুতলী যেহ্ন বড়ায়িল লো রৌদে দাণ্ডায়িলেঁ মিলাওঁ।
কেমনে কাহ্নের বোল পালিবোঁ মোয়ে পরাণে ডরাওঁ।। ১
হরি হরি নিদয়া বিধি কি লেখিল কিকে আইলা বড়ায়ি গো।। ধ্রু
নেত পাটোল না পিন্ধিবোঁ না পিন্ধিবোঁ সিসত সিন্দূর।
বাহের বলয়া না পিন্ধিবোঁ না পিন্ধিবোঁ পএর নূপুর।। ২
ঘরত বাহির নহোঁ বড়ায়ি গো সামীর বড়ই দুলালী।
নির্দ্দয় কাহ্নাঞিঁর হাথে পড়িলোঁ মোএঁ আবালী গোআলী।। ৩
সাত পাঁচ সখি শুণী বড়ায়ি গো … রাধার বচনে।
গাইল অনন্ত বড়ু চণ্ডীদাসে দেবী বাসলীগণে।। ৪
কোড়ারাগ ।। যতি ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৬৭ – বোল এক বোলোঁ রাধা সুণ আহ্মারে

বোল এক বোলোঁ রাধা সুণ আহ্মারে। খণ্ড কোপ ভয় দেহ শৃঙ্গারে।। ১
নীল কুটিল শোভে চিকুরে। প্রভাত আদিত শিথে সিন্দূরে।। ২
ভ্রূহি কামধনু নয়ন বাণে। নাসিকা ণালিক যন্ত্র সমানে।। ৩
মুখকমল আতি শোভা করে। বন্ধুলী জিণিআঁ আধর তোরে।। ৪
মাণিক জিনিআঁ দশন তোরে। তা দেখি দাড়িমফল বিদরে।। ৫
কম্বু সম তোর শোভএ গলে। কুচযুগ রাধা যোড় শ্রীফলে।। ৬
বাহু মৃণাল কর উতপলে। আঙ্গুলী চম্পককলিকাজালে।। ৭
সিংহমধ্য সম মধ্যে শোভে ত্রিবলী। ঊরুযুগ শোভে রামকদলী।। ৮
রাতা উতপল তোর দুঈ চরণে। রাজহংস জিণী তোর গমনে।। ৯
হেম রূপ তোহ্মার যৌবনে। নিফল করহ কমণ কারণে।। ১০
সরস হাসিআঁ বোল বচন। গাইল চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ১১

পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।। দণ্ডক ।।

নিপীয় কৃষ্ণবচনং রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৬৮ – সব গোপ যার মান ধরে

সব গোপ যার মান ধরে। সে কেহ্নে পরার নারী হরে।।
নিজ পতি আছে মোর ঘরে। তার হাথে কাহ্নাঞিঁ পাছে মরে।। ১
নিষধ নিষধ বনমালী। পাছে মোরে না দিহলি গালী।। ধ্রু
যে বচন বুইলে চক্রপাণী। সে বচন কানে নাহিঁ শুণী।।
তিন লোক খাআঁ মাহাদাণী। সম্বন্ধ না মানে মাঊলানী।। ২
ঘৃত দুধে সজাআঁ পসার। বিকি জাইএ যমুনার পার।।
হেন হএ বড়ার বেভারে। মাঊলানীক পাইল বাণিজারে।। ৩
কার পান চুন নাহিঁ খাওঁ। কাহারো পাস নাহিঁ জাওঁ।।
এড়ু কাহ্নাঞিঁ মোর পতিআশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
গুজ্জরীরাগ ।। যতি।।

৬৯ – সুণ ল সুন্দরি রাধা বচন আহ্মার

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

সুণ ল সুন্দরি রাধা বচন আহ্মার। নহুলী যৌবনে দেহ সরস শৃঙ্গার ।।
তোহ্মার যৌবন রাধা কৃপিণের ধন। পোটলি বান্ধিআঁ রাখ নহুলী যৌবন।। ১
বিলাহ যৌবন রাধা ল মোর বোল শুণ। যাবত যৌবনে রাধা নাহিঁ লাগে ঘুণ। ধ্রু
আম্বু জাম্বু মুকুলিল ভরে নোআঁইল ডাল। নহুলী যৌবন রাখিবি কত কাল।।
কোণ বিশ্বকর্ম্মে নির্ম্মিল দুঈ তন। আছু যুবজনের বৃদ্ধের জাএ মন।। ২
হেন স যৌবন রাধা সব আলপাউ। যৌবন গড়িলেঁ তোর তনু হৈবে লাউ।।
তোহ্মার যৌবন রাধে পাণির ফোটা। চিরকাল না রহিবে থাকি জাইবে খোঁটা।। ৩
এ তীন ভুবনে রাধা তোহ্মা কৈলোঁ সার। মনে পরিভাবি দেহ সরস শৃঙ্গার।।
নহুলী যৌবনে রাধা দেহ আলিঙ্গন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
কোড়ারাগ ।। রূপক ।।

৭০ – দুরুবার কংস নরপতী

দুরুবার কংস নরপতী। এহা জাণী ছাড়হ বিমতী।।
যবেঁ তোরে মারিহে পরাণে। তবেঁ তোক রাখিব কোণ জনে।। ১
ছাড়[৩৩/১]হ আহ্মার থান। আবিচারে হারায়িবি পরাণ।। ধ্রু
হইএ আইহহন গোআলী। যবেঁ বল করে বনমালী।।
রাজা আগেঁ করিবো গোহারী। তবেঁ তোক লআঁ যাবোঁ ধরী।। ২
হআঁ কাহ্ন বড়ার পো। ভাল কাম না করসি তোঁ।।
মতিমোষ মোকে কর বল। ভজিবি তোঁ লিখিত ফল।। ৩
না শুণিলি পুরাণ কথা। না জাণসি ধরমবেবথা।।
দান সাহ পরনারী আশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
মালবরাগ ।। একতালী ।।

৭১ – পরাশর নামে ঋষি আছিলা বিশাল

পরাশর নামে ঋষি আছিলা বিশাল। তীন ভুবনে জানী তপস্যা যাহার।
জলমাঝে মীনকণ্যা করিল গমন। তাত উপজিলা বেদব্যাস তপোধন।। ১
তোহ্মার বচন রাধা সবই আতত। পরদারে পাপ নাহিঁ মুনীর সমত।। ধ্রু
পাঞ্চ পাণ্ডবের ভৈলা কুন্তী জননী। পাঞ্চ পতী যার ভৈল সব লোকেঁ জাণী।।
রম্ভা আদি বেশ্যাক রমন্তি ত্রিদশে। হেন সব কণ্যা কেহ্নে বসে সুরপুরে।। ২
ত্রিপথগামিনী গঙ্গা হরেঁ শিরে ধরে। হেন গঙ্গা রমিল শান্তন নাম নরে।।
[৩৩/২]নারীর সম্ভোগ রাধা যদি পাপ বসে। এ তীন ভুবনেঁ কেহ্নে সে গঙ্গা পরসে।। ৩
নিজ পর নারী দোষ নাহিক সংসারে। যত সতীপণ সব মিছা জান তারে।।
এহা জাণী একমনে পুর মোর আশে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৭২ – গুরুপত্নী তারাক হরিল শশধরে

গুরুপত্নী তারাক হরিল শশধরে। আদ্যাপিহো অপযশ তার পরচরে।।
কপটে আহল্যাক রমিল সুরবরে। সহস্রেক যোনি ভৈল তার কলেবরে।। ১
হেন অদভুত কথা শুণ ল বড়ায়ি। পরদারে পাপ নাহিঁ বোলন্তি কাহ্নাঞিঁ।। ধ্রু
সুন্দ উপসুন্দ আছিলা দুঈ ভাই। তিলোত্তমা হেতু দুঈ ময়িলা এক ঠাই।।
সুম্ভ নিসুম্ভ দুঈ আসুর আছিলা। পার্ব্বতীর কারণে দুঈ জন মৈলা।। ২
চৌদ চৌ যুগ আয়ু লঙ্কার রাবণ। তেহোঁ সে মজিআঁ গেল শীতার কারণ।।
এহাজণী কাহ্নাঞিঁক নিষধ বড়ায়ি। [৩৪/১]কেহ্নে হেন মিছা কথা কহে মার ঠাই।। ৩
বোলহ বড়ায়ি কাহ্ন মনে পরিভাঊ। আপণে আপণা চিহ্নিআঁ ঘর জাঊ।।
আহ্মা সনে হেন তেজু পরিহাস। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাস ।। ৪
রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৭৩ – নীল জলদ সম কুন্তলভারা

নীল জলদ সম কুন্তলভারা। বেকত বিজুলি শোভে চম্পকমালা।। ১
শিশত শোভএ তোর কামসিন্দূর। প্রভাত সমএ যেন উয়ি গেল সূরা।। ২
ললাটে তিলক যেহ্ন নব শশিকলা। কুণ্ডলমণ্ডিত চারু শ্রবণযুগলা।। ৩
নাসা তিলফুল তোর আতী আনুপামা। গণ্ডস্থল শোভিত কমলদল সমা।। ৪
নয়নযুগল শোভে যেহেন খঞ্জনে। ঈসত কটাক্ষে মোহে মুনিমনে।। ৫
বিম্বফল জিণী তোর আধরের কলা। মাণিক জিণিআঁ তোর দশন উজলা।। ৬
কণ্ঠ কম্বুসম কুচ কোকযুগলা। বাহু মৃণাল কর রাতা উতপলা।। ৭
কনকচম্পক সম শোভে কলেবরা। মাঝা দেখি সিংহ গেলা পর্ব্বতকুহরা।। ৮
নাভি গভীর তোর প্রেয়াগ উপামা। উরুযুগ রামকদলীতরুসমা।। ৯
মন্থর গমনে যাসি ভাঁগিবার ডরে। তা দেখিআঁ বনবাস লৈল করীবরে।। ১০
অমরপুরত নাহিঁ হএ হেন রামা। বিধি কৈল জঙ্গমে কনকপ্রতিমা।। ১১
দেবাসুরেঁ মহোদধি মথিল তোহ্মারে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবরে।। ১২
মালবরাগ ।। যতি ।। দণ্ডক ।।

৭৪ – ষোল কলা সংপূণ্ণ চন্দ্রবদন

ষোল কলা সংপূণ্ণ চন্দ্রবদন। বেকত আমৃত তোর মধুর বচন।।
কাঁচ কনয়া যেহ্ন দেহের বরণ। কণ্ঠ কম্বু মণিগণ শোভএ দশন।। ১
সুন্দরি রাধা ল সরূপ বোল মোরে। দেবাসুর মহোদধি মথিল কি তোরে।। ধ্রু
কুণ্ডলে আদিত্য যেহ্ন রবির সংঘাত। গজরাজগতি পরিমল পারিজাত।।
সুরজনে মোহে পুরজনে নাহিঁ রাখ। কালকূট বিষহরি জাঁণল কটাক্ষ।। ২
সুররাজগজকুম্ভ কুচযুগল। তেলানী গভীর নাভি লাবণ্য জল।।
অমূল মণি নূপুর বাজের গমনে। তাক সুণী মোহো পাএ এ তীন ভুবনে।। ৩
সকলগুণসংপুণী রাধা চন্দ্রাবলী। তোর রূপ যৌবনে মোহিল বনমালী।।
রস হাস পরিহাসে তোষহ কাহ্নাঞিঁ । গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলী আয়ী।। ৪
পাহাড়ীআরাগ।।

৭৫ – জীবার আন্তরে কাহ্নাঞিঁ হৈলা

জীবার আন্তরে কাহ্নাঞিঁ হৈলা মাহাদানী। দান ছাড়ী পরনারী কিসক বাখানী।।
সকল বেভার তোর দেখি বিপরীতে। কোণ গুরু শিখাইল হেনক চরিতে।। ১
ছাড়হ বিবুধি কাহ্নাঞিঁ সুণ মোর বোল। দধি দুধ নঠ মোর আর ঘৃত ঘোল।। ধ্রু
কালী তোর মুখে দিল যশোদাএঁ তনে। আজি দানী হআঁ মোরে মাঙ্গ মাহাদাণে।।
হেন আলাগন কথা শুণী কোণ রাজে। তোহ্মার মুখত কাহ্নাঞিঁ নাহিঁ কিছু লাজে।। ২
এ বার বরিষ মোর তের নাহিঁ পুরে। এহা দেখি রসত মন কর দূরে।।
রূপস শরীর মোর কিছু নাহিঁ কাজ। কেতকী কুসুম যেন ধুলীএঁ সাজ।। ৩
গোআল জাতী আহ্মে জাইএ দধি বিকে। কাজ বিণি কাহ্নাঞিঁ রহাঅসি কিকে।।
বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
আহেররাগ ।। লঘুশেখর ।।

৭৬ – সর্ব্বাঙ্গে সুন্দরি তোএঁ দেব মুরারী

আল রাধা
সর্ব্বাঙ্গে সুন্দরি তোএঁ দেব মুরারী মোএঁ তোর মোর উচিত সে নেহা।
আল রাধা
তোহ্মের মজিল মন ভালে জাণে দেবাগণ ইথে কিছ নাহিঁক সন্দেহা।। ১
আল রাধা না পরিহর সুন্দর কাহ্নাঞিঁ। সবকলাসংপুনী তোঁ রাহী।। ধ্রু
তোর নাম চন্দ্রাবলী মোর নাম বনমালী তোর মোর শোভএ মীলনে।
কাহ্নাঞিঁ পাইবি বড় পুনে এহা পরিভাব মনে কেহ্ন্ তেজ হাথের রতনে।। ২
কদমতলের থিতী তোর মোর হৈব রতী এহা ভালেঁ জাণে দেবলোকে।
এবেঁ তোহ্মে আকারণে তেজ মোর বচনে পাছে পাইবেঁ বিরহ শোকে।। ৩
তোহ্মে পদুমিনী জাতী তোহ্মার আইহন পতি নপুংসক সেহো কংস দাসে।
নহে তোর পতি যোগ আহ্মা সমে ভুঞ্জ ভোগ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

৭৭ – রাজা বড় খরতর নাহিঁ শুণ কথা

রাজা বড় খরতর নাহিঁ শুণ কথা। লঘু[৩৬/১] নটক পাইলে কাটে তার মাথা।
গোচরিআঁ ফল করাইবোঁ জেন জাণী। তোহ্মেত ভাগিনা কাহ্ন আহ্মেত মাঊলানী।। ১
আহ্মে নাগরি গোআলী বড়ায়ি চৌহালীনী। কেহ্নে না চিহ্নসি আহ্মা আইহনের রাণী।। ধ্রু
হাথে তুলী লৈল কাহ্নাঞিঁ সুবণ্ণের বাঁশী। আহ্মাক দেখিআঁ তোহ্মে আধিক রূপসী।।
দেখিতেঁ সি পাইএ কাহ্নাঞিঁ ভক্ষিতেঁ না পাই। লাভে কিল বাড়ী খাই বান্ধিল জাই।। ২
এভোঁ সুন্দর কাহ্নাঞিঁ না কর বেআজ। দধি লআঁ যাইবোঁ মোএঁ মথুরার রাজ।।
আপণা চিনহ কাহ্নাঞিঁ ছাড় মোর আশে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৩
গুজ্জরীরাগ ।। যতি ।।

বিলেশয়বিষদ্বিষদ্‌বিষমরাগরাগাবলী-
শিখিজ্বলিতমানসো নিসরসো বসৌযেস্মিতে।
ততো বিতত রাধিকহধরশুধাং ময়ি দ্রুতং
ভৃতসুখে সুখং মম সুখেতরবধৈষিণি।।

৭৮ – কর্পূরবাসিত রাধা খাআর তাম্বূল

কর্পূরবাসিত রাধা খাআর তাম্বূল। টুটুক কাম আনল দেহ চুম কোল।। ১
কোণ পুরাণে কাহ্ন হেন শুণিলী কাহিণী।
তোহ্মে ভাগিনা কাহ্নাঞিঁ আহ্মে ত মাউলানী।। ২
মাউলানী মাউলানী রাধা ঘোসসি তুণ্ডে, মোর পাঁচশরতাপ পড়ু তোর মুণ্ডে।। ৩
কথাঁ না বসসি কাহ্নাঞিঁ কথাঁ তোর ঘর। মোর কংস নৃপতীক না করহ ডর।। ৪
কি করিতেঁ পারে তোর সে না কংস রাঅ। দৈবকীনন্দন কাহ্ন কাখো না ডরাঅ।। ৫
আহ্মাকে বল কৈলেঁ তোর নাহিঁ কিছু ফল। মাকড়ের হাথে যেহ্ন ঝুনা নারীকল।। ৬
ভাণ্ড ভাঁগিবোঁ রাধা খাইবোঁ দধী। আঞ্চলে ধরিবোঁ মোর না জাণসি শুধী।। ৭
আঞ্চলত না ধরহ শুণ অবুধ। সমুচিত ফল পাইবেঁ নঠ হৈলেঁ দুধ।। ৮
ভুজযুগে বান্ধী, রাধা দশনদংশনে। মোর সমুচিত ফল কর রুষ্ট মণে।। ৯
নাগরালী তেজ কাহ্নাঞিঁ নেবারহ মন। গাইল রড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।।১০
পাহাড়ীআরাগ ।। লগনী ।।

মুধা রাধা বাধাঞ্জরতি কুরুতে প্রাণপুরুষাং
রোষাদোষাধরসব্যংসনরসিকস্যাপি মম কিং।
সুধাসারাধনস্তন কনককুম্ভপ্রণয়িন
রসাবেশাদেষা জনয়তি যথা মা কুরু তথা।

৭৯ – মুখ কমলে আতি শোভা

মুখ কমলে আতি শোভা করে খঞ্জননয়ন দুঈ।
ভ্রুহি কাল শাপ যুগল তাহাত শোভএ নিচল হোই।।
আন যদি দেখে রাজপদ পাএ নানা উপভোগে নহে।
আছু রাজপদ দূর বড়ায়ি জীবন মোর সন্দেহে।। ১
হাথ য়োড় করিআঁ ভকতি করোঁ জীঊ দান দেহ বড়ায়ি।
বোল রাধারে মানু সুরতী তবেঁসি জীএ কাহ্নাঞিঁ।। ধ্রু
মাণিক জিনিআঁ দশনদুতী গীএ সাতেসরী হারে।
কর কমল বাহু মৃণাল হেমঘট পয়োভারে।।
নাভী তার নদ ঘাট ত্রিবলী ঘন জঘন পুলিনে।
উচিত তাহাতে কলহংস সম রএ কনক রসনে।। ২
রাধার নিতম্ব মণ্ডল আড়ন রোমাবলী কিরিপানে।
আতি আদভুত বিণি ঘাএ হাণী বিকল কৈল পরাণে।।
ভিতরে অনঙ্গ আনল জলে বাহিরে কেহো নাহিঁ জাণে।
এহাত আহ্মার নাহিঁক নিস্তার কহিলোঁ তোর চরণে।। ৩
উরুযুগ শোভে রামকদলী থলকমল চরণে।
রাজহংস জিণিআঁ আতি রাধার মন্থর গমনে।।
পৃথিবীত আহ্মে আবতার কৈল তার সুরতীর আশে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪

পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং ।
অথাধিভবতো রাধা জগাদ জরতীমিদং।।

৮০ – কাহ্নাঞিঁর বোল সুণী তোহ্মার মুখে

কাহ্নাঞিঁর বোল সুণী তোহ্মার মুখে। হৃদয় কাম্পএ মোর আতি বড় দুখে।।
এহা পথে যদি কাহ্নাঞিঁ লৈল মাহাদাণ। দান এড়ি কেহ্নে করে রূপের বাখান।। ১
আতিবড় দুষ্ট হৃদয় বনমালী। তোহ্মাখো বড়ায়ি মোর হের পুটাঞ্জলী।। ধ্রু
কাহ্নাঞিঁর বোলে কেহ্নে পাতসি কানে। কেহ্নে বা তাহার বোল কহ মোর থানে।।
তোহ্মা নিয়োজিল সাসুড়ী আহ্মা রাখিবারে। তাহাত উচিত হএ হেনসি বেভারে।। ২
রাখোআল কাহ্নাঞিঁ সে বড় আছিদর। তাহার বোলত কেহ্নে তোহ্মার আদর।।
তোহ্মাত আছএ যবেঁ রতি পতিআস। আপণেই চল তবেঁ কাহ্নাঞিঁর পাশ।। ৩
এভোঁহো চিন্তহ যবেঁ আহ্মার হিত। কাহ্নের বচনে তবেঁ না দিহ চীত।।
মৌন করিআঁ দুহেঁ থাকি এক পাশে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

ইত্যুক্তা রাধিকা মৌনমাস্থায় চিরমেকতঃ।
চকার বসতিং নম্রবদনা বৃদ্ধয়া সহ।।
অথ পঞ্চশরক্ষুণ্ণমনাঃ কৃষ্ণো মুনিব্রতং।
রাধায়াঙ্গীকৃতং মত্বা রভসাদিদমাহ তাম্ ।।

৮১ – হংস রএ সরোঅরে শুআহো

হংস রএ সরোঅরে শুআহো পাঞ্জরে কুয়িলী সে নন্দনবনে।
একেঁ একেঁ সখিজন সহ্মাক বোলাইলোঁ না পাইলোঁ তোহ্মার বচনে।। ১
বালি যাইবে ল আহ্মা উপেখিআঁ। এড়িতেঁ না ফুরে মন যৌবন দেখিআঁ।। ধ্রু
সোনার কটুআ দুটি মাণিকে পুরাআঁ। নেত বসন তাত ওহাড়ন দিআঁ।।
আহ্মা ভাণ্ডী লআঁ যাহ আমূল ভাণ্ডার। কাঞ্চুলী ঘুচাআঁ লৈবোঁ তাহার বিবাচার।। ২
সুংপুন পুনমীচাঁদ তোহ্মার বদন। কাঞ্চ হলদি যেন তোহ্মার বরণ।।
আকাইলেক কেশ তোর মুঠি এক মাঝা। তোর রূপেঁ মোহো গেলা ত্রিদশের রাজা।। ৩
তোর মুখে দেখি রাধা খাণিএক হাস। দেখোঁ দশনের যুতী চন্দ্র পরকাশ।।
ছাড়হ বিমতী রাধা দেহ আলিঙ্গন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
কোড়ারাগ ।। একতালী।।

৮২ – আরে ভৈরবপতনে গাঅ গড়াহলি

আরে ভৈরবপতনে গাঅ গড়াহলি গিআঁ। গঙ্গাজলে পৈস গলে কলসি বান্ধিআঁ।।
হেন যদি কর কাহ্নাঞিঁ আহ্মার বচনে। তবেঁ তোর হএ পাপ সাগরে মোচনে।। ১
বিচারিআঁ চাহ কাহ্নাঞিঁ আগম পুরাণে। কত পাপ হএ কৈলেঁ পরদার মনে।। ধ্রু
তোর দুই উরু রাধা ভৈরবপতনে। নিকটে থাকিতেঁ দূর জাইবোঁ কি কারণে।।
তো দুঈ কুচকুম্ভ বান্ধি নিজ গলে। বোল রাধা পৈসোঁ মো লাবণ্যগঙ্গাজলে।। ২
সুন সুবদনী রাধা আইহনের রাণী। পাপের খণ্ডনবুধী আহ্মে ভালে জাণী।। ধ্রু
কিছ না বুঝসি কাহ্নাঞিঁ ধরম বেবথা। আন বুলিতেঁ আন পাতসি কথা।।
বুঝিল কাহ্নাঞিঁ বুঝিল তোহ্মার মন। তোহ্মা হেন পৃথিবীত নাহিঁক টেটন।। ৩
বিরোধ না কর কাহ্নাঞিঁ জাইতেঁ দেহ ঘর। বিহাণ আইলাহোঁ ভৈল তিঅজ পহর।। ধ্রু
আহ্মার বচন রাধা সুন পরমান। বিনি রতি পাইলেঁ তোক না এড়িবে কাহ্ন।।
এআ জানী বৈশ রাধা আহ্মার পাশে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
আহ্মার পাশক রাধা আইস সত্বরে। নহে ত বান্ধিআঁ থুইবো দানের আন্তরে।। ধ্রু
মল্লাররাগ ।। রূপক ।। লখনী।।

৮৩ – এত বড় রাজা ভৈল ধনের কাতর

এত বড় রাজা ভৈল ধনের কাতর।
পথে মাহাদাণী থুইল হেন আছিদর।। ১
কাহারো আধিন নহে দেব বনমালী।
আপণে সুণ ল বোল রাধা ল গোআলী।। ২
মোর দধি ঘৃতে কেহ্নে তোহ্মে মাহাদাণী।
তোহ্মে ভাগিনা কাহ্নাঞিঁ আহ্মে ত মাঊলানী।। ৩
বাটে হাটে ঘাটে কাহ্নাঞিঁর দান বটে।
ভাণ্ড মাথে ষোল পন কড়াহো নাহিঁ টুটে।। ৪
সবেঁ ষোল পোণ দেহ দধির পসারে।
মিছাই ঝগড় কর কাহ্নাঞিঁ গোআরে।। ৫
পুরুষ জনমে কৈল জলধি মথানে।
তোহ্মে লক্ষ্মী রাধা এবেঁ আহ্মে হরি কাহ্নে।। ৬
সকল পুরুবকথা মিছা কহ তোহ্মে।
কথাঁ কাহ্ন হরি তোহ্মে কথাঁ লক্ষ্মী আহ্মে ।। ৭
তোহ্মে ত না জাণ রাধা আহ্মার মায়া।
স্বগ্‌র্গ মর্ত্য পাতালে আহ্মার এক কায়া।। ৮
রাখোআল হআঁ বোল জগতনিবাস।
সুণিআঁ করিব তোরেঁ লোক উপহাস।। ৯
বিণি দান পাইলেঁ আজি না এড়িবোঁ তোরে।
গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলী বরে।। ১০

মালবরাগ ।। রূপক ।। লগনী।।

৮৪ – ঘৃত দধি নঠ কইলি আরেরে

ঘৃত দধি নঠ কইলি আরেরে কাহ্নাঞিঁ ল আম্বল কৈলী ঘোল দহী।
কি আরে কাহ্ন।
পুবের সুরুজ পশ্চিমে আথ জাএ ল। এড়ি জাএ গোআলিনী সহী।। ১
জাইবার না দিলি মথুরার হাটে ল। দানছলে রোন্ধসি বাটে।। ধ্রু
গোপীজন সঙ্গে আহ্মে ছছন্দে বুলিলোঁ ল বিকো জাওঁ মথুরার হাট।
মো কেহ্নে জাণিবোঁ কাহ্নাঞিঁ পথে মাহাদাণী ল কাল ভৈল যমুনার বাট।। ২
ধর্ম্মের কাহ্নাঞিঁ তোহ্মে ধর্ম্মে মাহাদাণী ল ধর্ম্ম ছাড়ী কেহ্নে হেন করী।
চারি পাস চাহোঁ যেন বনের হরিণী ল নিজ মাঁসে জগতের বৈরী।। ৩
সর সলি লাগে মোর কানের কুণ্ডল ল বৈরি ভৈল পরিধান বাস।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ ল গাইল বড়ু চণ্ডীদাস।। ৪
মল্লাররাগ ।। একতালী ।।

৮৫ – পএর মগর খাড়ু মাথে ঘোড়া
পএর মগর খাড়ু মাথে ঘোড়া চুলে। চাঁচরী খেলাওঁ মোএঁ যমুনার কূলে।।
খেড়ী খোলাইএ আহ্মে নান্দের ঘরে। নিন্দ না জাএ কংস রাঅ মোর ডরে ।। ১
কিকে রাধা আজি তোহ্মে মথুরাক জাইবেঁ। সুরতসংভোগে রাধা বৃন্দাবন পাইবেঁ ।। ধ্রু
কণআ সদৃশ রাধা তোহ্মার গাঅ। হংসগমনে রাধা বাঢ়াসি পাঅ।।
আতি কঠিন কুচ তোর মাঝা খিনী দেহা। হেন রূপ যৌবনে না পাতসি নেহা।। ২
না কর সুন্দরি রাধা আন জঞ্জাল। আমিআঁ বরিষে তোর নয়ন বিশাল।।
খোঁপত লুলয়ে তোর দোলঙ্গের মাল। এতেকেঁ ভুঞ্জিতেঁ রতি তোর এহি কাল।। ৩
বিম্বফল জিণী তোর আধরের কান্তী। মুকুতাসদৃশ তোর দশনের যুতী।।
তোহোর যৌবনে মোর মজি গেল মন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ ।। ৪
মল্লাররাগ ।। রূপক ।।

নিপীয় কৃষ্ণবচনং রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমনতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৮৬ – ঘৃত দধি দুধেঁ পসার সজাআঁ

ঘৃত দধি দুধেঁ পসার সজাআঁ পিন্ধিলোঁ পাটের সাড়ী।
খোম্পাত উপর গুজরে ভ্রমর তাহাত কাহ্নের ধাড়ী।। ১
কান্দে গোআলিনী পাগলি হআঁ কি লআঁ জাহিবোঁ ঘরে।
দধি পসারে কাহ্ন মাহাদাণী কংসক না করে ডরে।। ধ্রু
কদম তলাত বসিআঁ কাহ্নাঞি নাকে মুখে বাঁশী বাএ।
দধি খাএ কাহ্নাঞিঁ আর ভাণ্ড ভাঁগে বলে আলিঙ্গন চাহে।। ২
নাকড়ি তলাত বসিআঁ কাহ্নাঞিঁ বলে কাঢ়ী খাএ খীরে।
জখন দেখোঁ মো কাল কাহ্নাঞিঁ ডরেঁ চিত নহে থীরে।। ৩
পাপে মন দিআঁ নটক কাহ্নাঞিঁ গোকুল কুল বিনাশে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
ভাঠিআলীরাগ ।। ক্রীড়া ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।
৮৭ – তোর বিরহে চিত্ত বেআকুল

তোর বিরহে চিত্ত বেআকুল না ছান্দো না বান্ধো গাই।
ছান্দের দড়ী সবই হারাইলোঁ বাছার উদ্দেশ নাহিঁ ।।
সব খন গোঠ উদাওঁ বুলে তোর ভাবেঁ কাহ্নাঞিঁ।
কেহো বোলে মার কেহো বোলে ধর যার বাড়ী জাএ গাই।। ধ্রু
রাধে ল
[ইহার পর ৪১-এর পাতা নাই]
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

৮৮ – বাসলী শিরে বন্দী

বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৩
এই খণ্ডিত পদের শেষ ছত্রটি মাত্র পাওয়া গিয়াছে।
নিশম্য কৃষ্ণবচনং রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৮৯ – পাখি জাতি নহোঁ বড়ায়ি

পাখি জাতি নহোঁ বড়ায়ি ঊড়ী পড়ি যাওঁ।
যথাঁ সে কাহ্নাঞিঁর মুখ দেখিতেঁ না পাওঁ।।
হেন মনে করে বিষ খাআঁ মরি জাওঁ।
মেদনী বিদার দেঊ পসিআঁ লুকাওঁ।। ১
সরূপেঁ মরিবোঁ তবেঁ শুণহ বড়ায়ি।
পন্থে বল করে যবেঁ আবাল কাহ্নাঞিঁ।। ধ্রু
দধি খাএ ভাণ্ড ভাঁগে দুধে দেয়ি পাণী।
সমুন্ধ না মানে সে ভাগিনা মাঊলানী।।
তিন লোক খাআঁ বোলে আহ্মার গোআলী।
জগজনে বোলে সে ভাগিনা বনমালী।। ২
শিশু হেন দেখি কাহ্ন বড় কাজ করে।
এত বড় বুলিতেঁ আধিকেঁ করে ধরে।।
তার বোল বুলিতেঁ সব গাঅ বিষ জলে।
নান্দো যশোদার পোঅ পন্থে বল করে।। ৩
আতিবড় দুরুজন বাটত কাহ্ন।
বার বরিষের মোকেঁ মাঁগে মাহাদান।।
দাণ ঘাটের কাহ্ন এড়ু পতিআশে।
বাসলী শিরে বন্দী চণ্ডীদাসে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। রূপক ।।

৯০ – সুন ল সুন্দরী রাধা পন্থত

সুন ল সুন্দরী রাধা পন্থত কৈলোঁ বিরোধা তোক বৈরী আবাল গোপালে।
মোএঁ গদা হাথে ধরোঁ আজি দাপ চুর করোঁ দেহ দান না কর কচালে।। ১
আহ্মে আইহনগোআলী সব গুণেঁ আগলী শিশু মুখেঁ পরবত টালী।
তোরে বোলোঁ বনমালী বাপেঁ মাএঁ দিবোঁ গালী পন্থ ছাড় ভৈল এত বেলী।। ২
আহ্মা শিশু না দেখিহ সুণ ল সুন্দরি রাধা আহ্মে কলি ত্রিদশ ঈশ্বরে।
সুন্দরি সরূপেঁ শুন বজর কত পরমান তার ঘাএঁ পরবত চূরে।। ৩
হাথে মৌহারী বাঁশী গোআল গোঠ রাখসি পন্থে বসী সাহ মাহাদানে।
কতেক করসি দাপ সহিতেঁ নারিবি চাপ বিলম্ব করহ কি কারণে।। ৪
পামরী ছেনারী নারী হআঁ বড় আছিদরী আসহন বোলহ সকলে।
তোর ভাল রিত নহে কে তোহোর হেন সহে দান লৈবোঁ ধরিআঁ আঞ্চলে।। ৫
রাজা বড় দুরুবার আইহন খুরের ধার কিকে কাহ্নাঞিঁ করহ কচালে।
ঘরত বুলিবোঁ যবেঁ লঘুতা পাইবেঁ তবেঁ পাছে দোষ না দিহ আহ্মারে।। ৬
সুণ রাহি সুন্দরি মারোঁ যবেঁ নহ তিরী বাটে দান তোহ্মার না ছাড়োঁ।
তোর রাজা কংসাসুর তার দাপ করোঁ চুর আন কোন বির সমেঁ ভিড়োঁ।। ৭
ঝগড় না কর পথে যোড় হাথ করি বোলোঁ সমুচিত নেহ মোর দানে।
তোর পরসাদেঁ জাওঁ আন পাণী নাহিঁ খাওঁ সাঁজ ভৈল আইলোঁ বিহানে।। ৮
না লইবোঁ তোর দান মোর বোল পরমান দেহ মোরে কুচের পাশে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৯
কহূরাগ ।। রূপক ।। লগনী।।

৯১ – উনমত নহ কাহ্নাঞিঁ মন কর থীর

উনমত নহ কাহ্নাঞিঁ মন কর থীর। মোর পাশ নাহিঁ জাএ আইহন বীর।।
বলেঁ চুম যদি দিবেঁ দশনের ঘাত। তবেঁ কোণ ছলেঁ ঘর জাইবোঁ গোপীনাথ।। ১
প্রণাম করিআঁ বোলোঁ দেব গদাধর। একবার দয়া করী আহ্মা পরিহর।। ধ্রু
কেহ্নে হেন কহ হআঁ গোআল জাতী। পরনারীকে কেহ্নে করহ আরতী।।
নান্দ গোপ সুণিলেঁ হৈবের কোণ গতী।
মণে পরিভাবি কাহ্নাঞিঁ তেজহ বিমতী।। ২
দানের আন্তরে কাহ্নাঞিঁ নেহ মুতীমহার।।
নাহিঁ যাবোঁ কাহ্নাঞিঁ মথুরাক আরবার।।
ঘৃত দুধ নঠ মোর সকল পসার। সাসুড়ী ননন্দ মোর আতি দুরুবার।। ৩
প্রথম বএঁসে মোঁ রাধিকা গোআলী। না জানোঁ সুরতি ভাব সুণ বনমালী।।
এড়হ বাগড় কাহ্নাঞিঁ জাইতেঁ দেহ ঘর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবর।। ৪
কোড়ারাগ ।। রূপক ।।

৯২ – ত্রিদশের নাথ আহ্মেঁ কাহ্নাঞিঁ

ত্রিদশের নাথ আহ্মেঁ কাহ্নাঞিঁ। ল। আল রাধে। খোজিলেঁ আহ্মা পাইবেঁ নাহিঁ।
বড় আশে আইলো তোর ঠাই। পাইল নিধি কে না বিহড়ায়ি।। ১
বারেক রাখহ জীবনে। তোরে দিবোঁ আমূল রতনে।। ধ্রু
যাবত যৌবন কালে। তাবত সরস শৃঙ্গারে।।
এবেঁ মোর মনে হউ সুখ। বিকসু কমল তোর মুখ।। ২
চাহ মোরে আড় করী দীঠে। কোণ দোষেঁ দিআঁ যাহ পীঠে।।
এবেঁ দেব কাহ্ন গদাধরে। কামসাগরে কর পারে।। ৩
কেলি করি জাই বৃন্দাবনে। দেহ মোরে সরস বচনে।।
কাহ্নাঞিঁক না কর নিরাসে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
ধানুষীরাগ ।। যতি ।।

৯৩ – কে বোলে গদাধর কে বোলে

কে বোলে গদাধর কে বোলে কাহ্ন। বাটে বোটোআড়ী করী সাহে মাহাদাণ।। ১
আহ্মা না চিহ্নসি তোএঁ মুগধী গোআলী। শঙ্খ চক্র আহ্মে গদা শারঙ্গ ধরী।। ২
রাখোআল কাহ্নাঞিঁ বোলসি দেব হরী। না জাণো কংস সুণিলেঁ এহাএ মরী।। ৩
প্রাণে মারিবোঁ কংসাসুর মোএঁ হেলে। দান লইবোঁ তোক মো ধরিবোঁ বলে।। ৪
ষোল শত গোআলিনী জাইএ বিকে হাটে।
মাগু কিলেঁ কিলাআঁ মারিবোঁ তোহ্মা বাটে।। ৫
ছাওয়াল না দেখ মোরেঁ মাথে ঘোড়া চুলে।
মুণ্ডেঁ মুণ্ডে ডুসাআঁ মারিবোঁ তোহ্মা হেলে।। ৬
তোহ্মার বিরত কাহাঞিঁ তিরীর উপর। এতেকেঁ পাইল তোহ্মে মহত্ব বিথর।। ৭
তেজ আল জঞ্জাল রাধা দেহ মোরে দান। বিণী দানে না এড়িব আজি তোহ্মা কাহ্ন।। ৮
পথ বিরোধ না কর নান্দের নন্দন। দয়া কর মোরে হের ধরোঁ চরণ।। ৯
সুরতি মানিআঁ রাধা জাহা নিজ ঘর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবর।। ১০
গুজ্জরীরাগ ।।রূপক।। জয়জয় ।।

নিপীয় কৃষ্ণবচনং রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

৯৪ – সাসুড়ী ননন্দ মোর ঘরে দুরুবারে

সাসুড়ী ননন্দ মোর ঘরে দুরুবারে। কোণ ছলেঁ জাইবোঁ ঘর নাহোঁ সতন্তরে।।
শ্রীফলসদৃশ কুচ সেহো মোর বৈরী। বোলহ বড়ায়ি এবেঁ কোণ বুধী করী।। ১
প্রাণ লআঁ খেড় ভৈল আগ হে বড়ায়ি। সামীর নিজ ধন খোজন্তি কাহ্নাঞিঁ।। ধ্রু
হার কাঙ্কন মোর কাঞ্চুলীতে দেএ টান। হেনক হোছাল মারে লএ পরাণ।।
চুম্বন দিবারেঁ চাহে বদনকমলে। আলিঙ্গন চাহে কাহ্নাঞিঁ বিরহের জরে।। ২
কাহাকে বুলিএ রতী না জাণো বড়ায়ি। হেন বিপরীত কতা কহান্তি কাহ্নাঞিঁ।।
মোএঁ শিশুমতী বড়ায়ি করোঁ কোণ বুধী।
শুণিআঁ বা কি বুলিবে সামী গুণনিধী।। ৩
অমূল রতন মানে ধরে মোর হাথে। মাঙ্গে সুরতি দান সান দেই মাথে।।
নিষধ নিষধ বড়ায়ি শ্রীমধুসূদন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
ধানুষীরাগ ।। রূপক ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৯৫ – দেবের দেব আহ্মে শ্রীবনমালী

দেবের দেব আহ্মে শ্রীবনমালী। দুখেঁ গেল চিরকাল সুণ ল গোআলী।।
এবেঁ সুখ ভুঞ্জিতেঁ মোর গেল মন। পালাউ জরমদুখ দেহ আলিঙ্গন।। ১
না চিহ্নিলি আল রাধা না শুণিলি বাত। গোকুলত মাহাদাণী শ্রীজগন্নাথ।। ধ্রু
শঙ্খ চক্র গদা আহ্মে শারঙ্গ ধরী। আহ্মা না চিহ্নসি রাধা মুগধী গোআলী।।
কোপেঁ শচীপতি যবেঁ বরিষএ ধারী। গোকুল রাখিল আহ্মে করে গিরী ধরী।। ২
শম্ভূ সম বান্ধি খোঁপা পাটোল পহ্রিআঁ। বিকে যাসি গোআলিনী লাস করিআঁ।।
বিধিএঁ গাঢ়িল রাধা তোর দুঈ তন। তা দেখিআঁ ভোলে পড়িলা জনার্দ্দন।। ৩
বারে বারে গোআলিনী দধি বিকে যাহা। দান ভাঙ্গিআঁ মোর নিতেই পালাহা।।
ছাড়িব দান রাধা দেহ আলিঙ্গন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

নিপীয় কৃষ্ণবচনং রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানবপুর্ব্বল্লী জগাদ জরতীমিদং।।

৯৬ – আন ডাক দিআঁ বড়ায়ি

আন ডাক দিআঁ বড়ায়ি নাপিতের পো।
কানড়ী খোঁপা বড়ায়ি মুণ্ডায়িবোঁ মো।।
কানড়ি খোঁপা বড়ায়ি মোর দুঈ তন।
যা দেখিআঁ কাহ্নাঞিঁ করন্তি যতন।। ১
কি কৈলি কি কৈলি বিধি নিরমিআঁ নারী।
আপণার মাঁসে হরিণী জগতের বৈরী।। ধ্রু
আলকে তিলক বড়ায়ি কাজল নয়নে।
এহা দেখি বেআকুল নান্দের নন্দনে।।
আর না পিন্ধিবোঁ বড়ায়ি সুরঙ্গ পাটোল।
এহা দেখি মাঁগে কাহ্নাঞিঁ বিরহের কোল।। ২
মুছিআঁ পেলাইবোঁ বড়ায়ি সিশের সিন্দূর।।
বাহুর বলয়া মো করিবোঁ শঙ্খচূর।।
ছিণ্ডিআঁ পেলাইবোঁ বড়ায়ি সাতেসরী হার।
যা দিখেআঁ মাঙ্গে কাহ্নাঞিঁ নিবিড় শৃঙ্গার।। ৩
হেন মন করে বড়ায়ি দহে পৈসী মরী।
পরার পুরুষ সমেঁ ধামালী না করী।।
ধামালী বুলিতেঁ কাহ্নে না দিহলি আস।
বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
ভাটিআলীরাগ ।। রূপক ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

৯৭ – নিতি নিতি রাধা যাসি বিকে

নিতি নিতি রাধা যাসি বিকে। মোর মাহাদান ভাঙ্গাসি কিকে।। ১
নিলজ বড় গোকুলের কাহ্ন। কোণ বিতে তোর মাহাদান।। ২
ঘৃত দধি দুধ তোর পসার। মাহাদান কিকে ভাঁগ আহ্মার।। ৩
বিথর কালে বিথর শুণী। ঘৃত দধি দুধে বসে মাহাদানী।। ৪
পুছিআঁ চাহা বলভদ্র ভাই। মোর মাহাদান তোহ্মার ঠাই।। ৫
কিবা পুছিবোঁ মোএঁ বলভদর। তোহ্মাথো আধিক সে আছিদর।। ৬
বড়ার ঝি তোর ভাল নহে মতী। আজি করোঁ তোর পঞ্চ সঙ্গতী।। ৭
এ লোক ও লোক সে জন খাএ। সেহি এহা পথে মাহাদাণী বোলাএ।। ৮
বার বরিষের আহ্মার দান। বান্ধিআঁ তোহ্মার লইবোঁ পরাণ।। ৯
কাহাক দেখাহ এ কাঠদাপে। বান্ধিতেঁ না পারে তোহ্মার বাপে।। ১০
সুন্দরি রাধা মোর বোল শুন। ছাড়িব দান দেহ আলিঙ্গন।। ১১
না জাণো কাহ্নাঞিঁ সুরতি আশে। কেহ্নে করহ হেন আভিহাসে।। ১২
গোআল জাতী আতি পণ্ডিআঁ। পুরুষে আধিক তিরী আণ্ডিআ। ১৩
রাধাক রাখিল কাহ্নাঞিঁ। গাইল চণ্ডীদাস বাসলী আই।। ১৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।। লগনী ।।

৯৮ – বিচিত্র খোঁপার উপরেঁ রাধা

বিচিত্র খোঁপার উপরেঁ রাধা পুষ্প তোর শোভে মাথে।
কণ্ণের কুণ্ডল রতনে উজল তোর মুখ নিশানাথে।।
শিশের সিন্দূর সুরেখ শোভে আর দশনের যুতী।
বন্ধুলী জিণিআঁ তোহ্মার আধর গিএ শোভে গজমুতী।। ১
রাধে দাণের কর সুসারে।
পালাইলেঁ দান এড়ান না জাএ পাইলেঁ মূল আফারে।। ধ্রু
বারেঁ বারেঁ যাহা দধি দুধ লআঁ পালাইআঁ আন পথে।
দৈবযোগেঁ আসি এবার রাধা পড়িলা আহ্মার হাথে।।
এক বারেঁ তোর সব দান লৈবোঁ আর খাইবোঁ দধী।
আহ্মে জগন্নাথ ত্রিদশ ঈশর তোহ্মে নাহিঁ জান সুখী।। ২
বাহুযুগ তোর কনক মৃণাল কুচ উলট কটোরে।
মুঠি এক মাঝা গুরুঅ জঘন তাত বড় লোভ মোরে।।
উরুযুগ রামকদলী চরণ থলকমল আকারে।
এক এক আঙ্গে লক্ষ লক্ষ দান উচিত হএ আহ্মারে।। ৩
এহা দান দিআঁ না আপণ ইছাএ চলহ মথুরা নগরে।
যবেঁ দান দিতেঁ না পারহ রাধা শুন আহ্মার উত্তরে।।
ঈষত হাসিআঁ পাসত বসিআঁ পুরহ আহ্মার আশে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

৯৯ – সাসু নিষধিল মোরে বালী ল

সাসু নিষধিল মোরে বালী ল বহু দধি বিকে না জাইহ কালী।
উ বেলি না জাইহ মথুরার হাটে ল।
ভাণ্ড ভাঁগিব তোর কাহ্নে।
আল দধি খাইব তোর আনে।
আল রাজভাগিনা বল করিব তোরে বাটে।। ১
আল মোরে তেজ বনমালী। সাসু দুরুবার ঘরে পাড়িব গালী।। ধ্রু
মোএঁ আইহন বীরের গোআলী। আল বল না কর বনমালী।
কংসে সুধি পাইলেঁ হইবেঁ তোহ্মে আপোষে।
মোএঁ কান্দিআঁ সাসু জাণায়িবোঁ। তোর কাহ্নাঞিঁ নাম পেলাইবোঁ।
পাছেঁ বুলিবেঁ আবালী রাধার দোষে।। ২
কাল হাণ্ডির ভাত না খাওঁ। কাল মেঘের ছায়া নাহিঁ জাওঁ।
কালিনী রাতি মোঁ প্রদীপ জালিআঁ পোহাওঁ।
কাল গাইর ক্ষীর নাহিঁ খাওঁ। কাল কাজল নয়নে না লওঁ।
কাল কাহ্নাঞিঁ তোক বড় ডরাওঁ।। ৩
আঠ চারি বরিষের বালা। তোর মাথে শোভে ঘোড়া চুলা।
এহা বুঝী তেজহ কাহ্নাঞিঁ আহ্মার পাশে।
তেজ মিছা মহাদানে। ঘর যাহা নিজ মানে।
বাসলী বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

১০০ – কাল আখরেঁ তীন ভুবন বিচার

কাল আখরেঁ তীন ভুবন বিচার। কাল মেঘের জলে জীএ সংসার।।
কাল গাইর ক্ষীর লাগে বড় কাজে। কাল রতনে হার শোভে দেবরাজে।। ১
আকারণে আল রাধা নিন্দসি কৃষ্ণ কালা। সর্ব্বাঙ্গে সুন্দর নান্দো যশোদার বালা।। ধ্রু
কাল চিকুর শোভে মাথার উপরে। কাল ভুরুহী শোভে বদনকমলে।।
কাল ভ্রমরে কমলবন শোহে। কাল কাজনে নারী জগজন মোহে।। ২
কাল নাঞ্ছন কোলে ধরে শশধরে। কাল আকপাঁতী শোভএ কপোলে।।
কাল উতপল নয়নে শোভসি গোআলী। কাল সুন্দর দেহেঁ শোভে বনমালী।। ৩
কাল মেঘের পাশে শোভে পুনমির চন্দ। এহা বুঝী না কর রাধা তোঁ মন মন্দ।।
কাল কাহ্নের এবেঁ ধরহ বচন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

১০১ – কাল কাহ্নাঞিঁ তোহ্মে আহ্মা

কাল কাহ্নাঞিঁ তোহ্মে আহ্মা না উপেখ। কামে আন্ধল হআঁ বাট নাহিঁ দেখ।।
কাল শরীর কাহ্নাঞিঁ কাল তোর মন। দানছলেঁ বাটপাড় সর্ব্বখন।। ১
আবুধ ছাওয়াল কাহ্নাঞিঁ মাঙ্গসি দান। আইহন জানাআঁ তোর লইবোঁ পরাণ।। ধ্রু
কাঞ্চুলী ভাঁগসি মোর ছিণ্ডসি হার। মিছাই লোড়সি কাহ্নাঞিঁ আহ্মার পসার।।
দধি দুধ ঘৃত খাইলি ভাঁগিলি ভাণ্ড। গোআলকুলে কি তোহ্মে উপজিল সাণ্ড।। ২
ঘৃত দধি দুধ ঘোল ছাড়াআঁ মোর। বিমুখ হয়িআঁ খলখলি হাস তোর।।
তভোঁহো নিলজ কাহ্নাঞিঁ মাঙ্গসি দাণ। তোর মোর হৈবে কাহ্নাঞিঁ বড়য়ি বাখান।। ৩
আপণা চিহ্নিআঁ কাহ্নাঞিঁ জাহা নিজ ঘর। মিছাই সাধহ দাণ হআঁ আছিদর।।
পন্থ ছাড় কাহ্নাঞিঁ তেজ রতি আশে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
দেশাগরাগ ।। লঘুশেখর ।।

১০২ – শুণ ত সুন্দরি রাধা পাঞ্জীর বাখান

শুণ ত সুন্দরি রাধা পাঞ্জীর বাখান। ষোল শত কুতঘাটে মোর মাহাদান।। ১
এবেঁ রাজা হয়িল ধনের কাতর। পথে মাহাদাণী থুয়িল হেন আছিদর ।। ২
আছিদর নহোঁ রাধা এ মতীএঁ থীর। এ তীন ভুবনে নাহিঁ আহ্মাক বীর।। ৩
এ বোল বুলিতে কাহ্নাঞিঁ মুখে লাজ বাস।
এভোঁহো নাহিঁ ঘুচে তোর মুখে দুধবাস।। ৪
ছাওআল নহোঁ রাধা আইহন গোসাঞিঁ। না চিহ্নসি আহ্মা রাধা দেব কাহ্নাঞিঁ।। ৫
ঘৃত দুধ লআঁ যাওঁ মথুরার হাট। খাণিএক ছাড়িআঁ কাহ্নাঞিঁ মোরে দেহ বাট।। ৬
তোহ্মাত লাগিআঁ রাধা ভৈলোঁ পাগল। তেকারণে রাধা তোরে পন্থে কৈলোঁ বল।। ৭
পাগল হয়িলা যবেঁ যাহ বেজঘর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বসলীবর।। ৮
ললিতরাগ ।। রূপক ।। লগনী।।

১০৩ – পুতনার প্রাণ লৈলোঁ

পুতনার প্রাণ লৈলোঁ আতি শিশুকালে।
সকট আসুর মোএঁ দলিলোঁ হেলে।।
জমল আর্জ্জুন রাধা দুঈ আসুর। তাহারো পরাণ লআঁ নিলোঁ যমপুর ।। ১
গোআলিনী রাধা ল না বোল বীরদপে। এ তীন ভুবনে যানে আহ্মার প্রতাপ।। ধ্রু
ঊনঞ্চাস বাএ রাধা কৈল ঘন গড়। সাত দিন নয় রাতি গোকুলত ঝড়।।
বরিষে মুষল ধারা পাণী পাথর। গোকুল রাখিলোঁ করে ধরি গিরিবর।। ২
হনুমান মাহাবীর হৈলা সারথী। তবেঁ কৈলোঁ সেতুবন্ধ আহ্মে দাশরথী।।
মাইল ইন্দ্রজিত ভায়ি লক্ষ্মণে। জয় জয় হুলাহুলী দিল দেবগণে।। ৩
সুণ তোএঁ আল রাধা আহ্মার কাহিণী। কাহ্ন মাহাবীর জগতেঁ ভালেঁ জাণী।।
পাছে হারায়িবি কোলের নিধি কাহ্নে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ৪
মল্লাররাগ ।। রূপক ।।

নিপীয় কৃষ্ণবচনং রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

১০৪ – কালিনীমাএ মোর নাম

কালিনীমাএ মোর নাম থুইল রাধা
হাছি জিঠী কেহো তাত না দিল বিরোধা।।
আহ্মে দুখমতী নারী আঠকপালী। আসিআঁ পড়িআঁ গেলোঁ কাহ্নের ধামালী।। ১
হরি হরি কিসকে চলিলো বড়ায়ি মথুরানগর। আহ্মা দুখমতী লআঁ ভৈল আথান্তর।। ধ্রু
দধি বিকে জাইএ বড়ায়ি বারহ বৎসর। কোণোহো দানীর পোএঁ না দিল উত্তর।।
এবেঁ কাহ্নাঞিঁ ভৈল আতিবড় দুরুবার। যাণাইবোঁ কংস যেন করএ বিচার।। ২
গোআলার ঝি আহ্মে আতিশয় বালী। মোর আশা ছাড়ুক নটক বনমালী।
এক বেলি কাহ্ন মোর রাখুক সমান। দয়া করী কাহ্ন মোরে দেউ জীউ দান।। ৩
কাম্পিতেঁ কান্দিআঁ বোলোঁ তোহ্মার চরণে। একবার আহ্মা প্রতি দয়া ধর মনে।।
নিবারহ কাহ্নাঞিঁ আহ্মার বচনে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ৪
মাহারঠারাগ ।। রূপক ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

১০৫ – আতি রূপসী পদুমিনী জাতী

আতি রূপসী পদুমিনী জাতী দেখি থীর নহে মনে।
তোর বিরহে চিত্ত বেআকুল মোএঁ না জীবোঁ কেনমনে।। ১
হেনক বচন না বোল কাহ্নাঞিঁ তোর বাপে নাহিঁ লাজ।
সোদর মাঊলানীত ভোলে পড়িলাহা দেখিআঁ রুপস কাজ।। ২
মদনবাণে চিত্ত বেআকুল কিবা ঘোসসি মামী মামী।
মিছা কাজে মোকে ভাণ্ডিতেঁ চাহ সকলে জাণিএ আহ্মী।। ৩
ছাওয়াল কাহ্নাঞিঁ বোল না বুঝসি বুঝিল তোহ্মার মতী।
মোঁ জে গোআলিনী আবালী রাধা না জাণো রঙ্গ সুরতী।। ৪
আহ্মে সে কাহ্নাঞিঁ গোআল নাগর তোহ্মার বার বরিষে।
নহুলী যৌবন আতি শুশোভন সুরতি দেহ হরিষে।। ৫
প্রথম যৌবন মুদিত ভাণ্ডার তাত না সম্বাএ চুরী।
আহ্মার যৌবন কাল ভুজঙ্গম ছুইলেঁ খাইলেঁ মরী।। ৬
আহ্মে সে কাহ্নাঞিঁ তোহ্মে চন্দ্রবলী মরণে তোহ্মা না ছাড়ী।
তোহ্মার যৌবন কাল ভুজঙ্গম আহ্মেহো ভাল গারুড়ী।। ৭
নাগর কাহ্নাঞিঁ মোকে বিগুতে আশেষ নেআঅ জুড়ী।
কোণ বিবুধি এ হেন পথে আনিলে দারুণী বুঢ়ী।। ৮
নাগর দেখিআঁ দেহ আলিঙ্গন কিকে কর আভিরোষে।
আহ্মার করমে তোহ্মাক আণিলে বড়ায়ির কমণ দোষে।। ৯
তপত দুধ নালে না পীএ জুড়ায়িলেঁ সোআদ তাএ।
নহুলী যৌবন কাঁচ শিরিফল তাহাক কেহো নাহিঁ খাএ ।। ১০
যাত খিদা বসে নাগরি রাধা কিবা তার কাঁচ পাকাএ।
যেমনে পাএ তেমনে খাএ যা নাহিঁ খিধা পালাএ।। ১১
দীঠি দীঠি চাহি বোলোঁ মো কাহ্নাঞিঁ আহ্মাক এড়িতেঁ জুআএ।
সমুখ দীঠে পড়িলে বনত ভুখিল বাঘ না খাএ।। ১২
আহ্মার বচনে সুন্দরি রাধা মনে কর হরিষে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ১৩
দেশাগারাগ ।। লগনী ।। ক্রীড়া ।।

১০৬ – দেখা দেখি বড় মিঠ

দেখা দেখি বড় মিঠ আর মিঠ হাস। তেকারণে আল রাধা আইলোঁ তোর পাশ।।
আলিঙ্গন দেহ চিত্তে হউক সোআথ। তোহ্মার কারণে আরতিল জগন্নাথ।। ১
কিকে চাহিলেঁ রাধা আড় নয়নে। আকুল পরাণ ভৈল তোর দরশনে।। ধ্রু
আঞ্চল চঞ্চল তোর নয়ন খঞ্জনে। আর্জ্জুনের বাণ জিণী তাহার সন্ধানে।
যে বোল বোলসি রাধা তাহাক করিবোঁ। আকাশের চান্দ চাহা তাক আণি দিবোঁ।। ২
আধর বন্ধুলী তোর বদন কমলে। মাণিক জিণিআঁ তোর দশন উজলে।।
বারেক সুরতি মান না কর নিরাসে। পাছে কৈলী না পাইবেঁ দেব ঋষীকেশে।। ৩
এক মুখেঁ তোর রূপ কহিতেঁ না পারী। সর্ব্বাঙ্গে সুন্দরি রাধা মোহিলী মুরারী।।
আলিঙ্গন দিআঁ তোষ নান্দের নন্দনে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ৪
ধানুষীরাগ ।। একতালী ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

১০৭ – দহে পৈসু বড়ায়ি তিরীর জীবন

দহে পৈসু বড়ায়ি তিরীর জীবন। বৈরি হআঁ লাগিল এ রূপ যৌবন ।।
এহা দুখ বড়ায়ি গ সহিতেঁ না পারী। আপণ গাএর মাঁসে হরিণি বিকলী।। ১
হরি হরি সুন বড়ায়ি মথুরা গমন নাহিঁ।
বৈরি হআঁ লাগিল এ কাল কাহ্নাঞিঁ ।। ধ্রু
কমণ আসুভ ক্ষণে বাঢ়ায়িলোঁ পা। হাঁছী জিঠী তাত কোহো নাহিঁ দিল রাধা।।
সোদর ভাগিনা বড়ায়ি মাঙ্গএ সুরতী। দিবওঁ পরাণ মোঁ করিবোঁ আত্মঘাতী।। ২
সোনার চুপড়ি বড়ায়ি রুপার ঘড়ী। নেত আঞ্চল সে দিআঁ ত ওহাড়ী।।
নঠ হৈল ঘোল দুধ আর নঠ থী। এড়ি জাএ মোক সব গোআলার ঝী।। ৩
কান্দিআঁ জাণায়িবোঁ কাঁশে। পাছে কাহ্নাঞিঁ মোকে না দিহে দোষে।।
বোলহ কাহ্নাঞিঁ এভোঁ তেজু মোর আশ। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাস।। ৪
বেলাবলীরাগ।। একতালী।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

১০৮ – বেদ উদ্ধারিলোঁ ক্রীড়া সাগরজলে

বেদ উদ্ধারিলোঁ ক্রীড়া সাগরজলে নীলাএ আহ্মে মুরারী।
দৈত্য দলিলোঁ আসুর সংহারিলো শঙ্খ চক্র গদা ধরী।। ১
নটক কাহ্নাঞিঁ কপট মতী কত না পাতসি মায়া।
তোহ্মার পরাণে বেদ উদ্ধারিল সপত পাতাল গিআ।। ২
রাম রূপেঁ রাবণ বধিলোঁ লঙ্কা কইলোঁ ছারখার।
লক্ষণ সহাএঁ সাধিলোঁ মান সীতার কইলোঁ উদ্ধার।। ৩
আকাশপ্রমাণ লঙ্কার গড় তোহ্মার পরাণে তথাঁ জাই।
গরু রাখোআল গোঠে থাকহ মিছা বোলহ দুঈ ভাই।।৪
আহ্মে যে কৃষ্ণ হরি বনমালী কৌতুকেঁ রাখিলো গাই।
মিছা না বোলোঁ আপণ বলেঁ দান সাধোঁ দুঈ ভাই।। ৫
আছিদর কাহ্নাঞিঁ বোল না বুঝসি মুখত বজর বসে।
শুণিলেঁ কংস মরিআঁ জাইবি আপণ করমদোষে।। ৬
বরাহ রূপেঁ দান্তের আগে তোলী ধরিলোঁ মহী।
নরসিংহ রূপেঁ হিরণ্য বিদারিলোঁ তোহ্মে না জাণহ রাহী।। ৭
বুঝিল কাহ্নাঞিঁ তোহ্মার বিরত মিছা না করহ দাপে।
আছুক তোহোর কথা হেন করিতেঁ নারে তোর বাপে।। ৮
অবুধ গোআলিনী বোল না বুঝসি মোর না জাণসি কূল।
ক্ষত্রিয় কূলে জরম আহ্মার বীর পিতা শ্রীবসুল।। ৯
না কর জঞ্জাল যাওঁ মথুরা ছাড়হ আহ্মার আশে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ১০
কোড়ারাগ ।। একতালী ।।

১০৯ – যমুনার তীরে রাধা কদমের তলে

যমুনার তীরে রাধা কদমের তলে তথি মাঝেঁ কাহ্নাঞিঁর থানে।
বোলে চালেঁ এড়ায়িতেঁ না পারিবি রাধা ল দিআঁ যাহা সুরতী দাণে ।। ১
পথে মাহাদানী কাহ্নাঞিঁ আহ্মে। কেহ্নে রাধা না দেহ দানে।। ধ্রু
শঙ্খ চক্র গদা শারঙ্গ ধরোঁ আহ্মে দেব শ্রীবনমালী।
সব কলা সংপুনী আইহনের রাণী নাম তোর রাধা চন্দ্রাবলী।। ২
পুরুব কালতে তোর পতি চক্রপাণি তো এবেঁ পাসরিলি কিকে।
তোহ্মার কারণে আহ্মে আবতার কৈল দিআঁ যাহ আলিঙ্গন দানে।। ৩
চন্দ্রবদনী রাধা সুন মোর বোল তোত মোর আছে রতি আশে।
তোর দুঈ কুচ মাঝে মোর মন গেল ল গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
কোড়াদেশাগরাগ ।। একতালী ।।

১১০ – আপণে বোল তোহ্মে ত্রিদশের পতী

আপণে বোল তোহ্মে ত্রিদশের পতী।
তবেঁ কেহ্নে পরদারে মজে তোর মতী।।
গরু রাখি বুল তোহ্মে মাঝ বৃন্দাবনে। এবেঁ পাপ কাজে লাগি সাহ মাহাদানে।। ১
ছাড়হ কাহ্নাঞিঁ তোহ্মে পাপ বচনে। আইহন শুণিলেঁ তোর লইব পরাণে।। ধ্রু
ভূমি ছুইআঁ হাথ পরসওঁ দুঈ কানে।
এভোঁহো কাহ্নাঞিঁ তোত না ভৈল গেআনে।।
আহ্মাকে না কর কাহ্নাঞিঁ আধিক যতনে।
কভোঁ না শুনিব আহ্মে তোহ্মার বচনে।। ২
তোহ্মার বচন মোর না সাম্বাএ কানে। তভোঁহো কাহ্নাঞিঁ কেহ্নে করহ যতনে।।
এহা বুঝী নিবারিআঁ পাপত মন। বাহুড়ী আপণ ঘর করহ গমন।। ৩
কিসক করহ কাহ্ন হেন পরবন্ধ। তোর সমে আছে মোর নিয়ড় সম্বন্ধ।।
এহা জাণী ছাড় কাহ্নাঞিঁ আহ্মার আশে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
গুজ্জরীরাগ ।। যতি ।।

১১১ – খোঁপাত উপর তোর বউলমাল দেখী

খোঁপাত উপর তোর বউলমাল দেখী। সিসের সিন্দূর তোর লক্ষ দান লেখী।।
নাসা তিলফুল তোর জগজন মোহে। কাজলের রেখা তোর লক্ষ দান নহে।। ১
না জাহা না জাহা গোআলী ওলাহা পসারা। আহ্মে মাহাদানী তোর লইব বিচারা।। ধ্রু
ঘৃত দধি দুধ ঘোল তোহ্মার। ভাণ্ড মাথে ষোল পোণ দান আহ্মার।।
এবেঁ সুন্দরি রাধে করিবেঁ কী। আর জাইতেঁ না পাইবেঁ গোআলার ঝী।। ২
কড়ী দিতেঁ না পারিবি মোর মাহাদানে। এভোঁ দেহ আল রাধা আলিঙ্গন দানে।।
কিকে পরিহর রাধা শ্রীমধুসূদন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৩
দেশাগারাগ ।। একতালী ।।

১১২ – দেহের দেবতা তোহ্মে জগতের নাথ

দেহের দেবতা তোহ্মে জগতের নাথ। বলে ধর আঞ্চলে খোঁপাত দেহ হাথ।।
কাঞ্চুলী ছিণ্ডিআঁ মোর বিদারহ তনে। না জাণো নান্দের পোঅ হেন করে কেহ্নে।। ১
অপরুব কথা মোএঁ কহিবোঁ কাহারে। পঞ্চ সঙ্গতি কৈল কাহ্নাঞিঁ আহ্মারে।। ধ্রু
বাহুর বলয়া মোর নিতেঁ চাহ হার। বলে চুম্ব চাহ আর সরস শৃঙ্গার।।
ধরম লঙ্ঘিআঁ কাহ্নাঞিঁ পাপে দিলি মন। নিয়ড় হইল তোর যমের করণ।। ২
দধি খাই ভাণ্ড ভাঁগি দুধে দেহ পাণী। সম্বন্ধ না মান কাহ্নাঞিঁ ভাগিনা মাউলানী।।
দুই লোক খাআঁ বোল আহ্মার গোআলী। জগ জাণে আহ্মার ভাগিনা বনমালী।। ৩
যবেঁ আহ্মে না দিব কাহ্নাঞিঁ তোরে ফল। তবেঁ এহিমতেঁ পথে করিবি তোঁ বল।।
ঝাঁট গিআঁ আণাওঁ আইহন কংস রাএ। বাসলী শিরে বন্দী চণ্ডীদাস গাএ।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

১১৩ – আইস গোআলিনী বইস কদমের তলে

আইস গোআলিনী বইস কদমের তলে সব তত্ত্ব কহো মোঁ তোহ্মারে।
কর কুলআঁ ঘাটে কাহ্ন মাহাদানী বাটে কোণ বুধি কোণ পরকারে।। ১
সুণ তোঁ নিলজ কাহ্ন কিসক সাধহ দান কোন বিথু বথুর উপরে।
জীবারে নারহ যবেঁ হেনক করহ তবেঁ ভিক্ষা মাঙ্গহ ঘরে ঘরে।। ২
আইহন সে জীএ কিকে হেন নারী পাঠাও বিকে গোপ জাতী বনের কাত[৫৪/২]রে।
যার ঘরে হেন নারী সে কেহ্নে ধন ভিখারী তোহ্মা বান্ধা দেউ মোর ঘরে।। ৩
হইএ আহ্মে গোপ জাতী পতি ছাড়ী নাহি গতী ঘৃতে দুধেঁ সাজিএ পসারে।
তোহ্মে রাখোআল জনে কড়া চারী কড়ী ধনে আপণাক জাণহ ঈশরে।। ৪
তোঁএ সে গোআ… না বুঝিসি মোর মায়া আহ্মে ত্রিভুবনে আধিকারী।
আছি গোপরূপ ধরী আহ্মে যবেঁ মন করী তোহ্মাহো কিণিতেঁ তবেঁ পারী।। ৫
যেবা হএ বড় জন তার নহে হেন মন বুঝিলোঁ মো তোহ্মার বচনে।
পুণ্য থুইআঁ এক ভিতে পাপে মজাইআঁ চিত্তে আতী ধনী হআঁ সাধ দানে।। ৬
স্বগ্‌র্গ মর্ত্য পাতালে মোর দান সর্ব্বকালে তোর আশেঁ আছোঁ এহা পথে।
এভোঁ যবেঁ যৌবন রাখিবারে কর মন বান্ধিআঁ থুইবো দুঈ হাথে।। ৭
সুণহ নটক টেন্টন কাহ্ন কেহ্নে কর আপমানকে বাটে।
তোর কি বাড়িতে আছোঁ তোর কিবা ভাত খাওঁ
না মানসি কংসরাঅ পাটে।। ৮
হইএ আহ্মে দামোদর মারিলোঁ আসুর বল কত দাপ দেখাসসি মোরে।
মারিবোঁ কংস আসুর তোর দাপ করোঁ চুর দেখোঁ কে বা পড়িঘাএ তোরে।। ৯
হঅ গরু রাখোআল বোল আকাশ পাতাল তা সুণি কে বা পাতিআএ।
তোহ্মে বাটে মাহাদাণী মোহোঁ আইহনরাণী বল কৈলেঁ জাণায়িবোঁ রাজাএ।। ১০
রাধা হে তোর বলে ভাণ্ড ভাঁগিআঁ সকল দধি খাইবোঁ আপণ ইছাএ।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ ল বড়ু চণ্ডীদাস গাএ।। ১১
কহূরাগ ।। একতালী ।। লগনী ।।

১১৪ – কাহ্নাঞিঁ তোর মান ধরে

কাহ্নাঞিঁ তোর মান ধরে সকল ঋষি। মাথ ঘোড়াচুল … মনোহর বাঁশী।
হেন কাহ্নাঞিঁ ভাণ্ড ভাঁগিআঁ খাইলে দহী।
কাতে নিবেদিবোঁ মোএঁ এথাঁ কেহো নাহিঁ ।।১
এখুনি বুলিবোঁ গিআঁ যশোদার থানে। নিমাথি দেখিআঁ মোক বল করে কাহ্নে।। ধ্রু
কাঞ্চুলী ভাঁগিআঁ কুচে দিতেঁ চাহ হাথে।
হেন বুঝোঁ তোহ্মার কাটিলেঁ লাগে মাথে ।।
এবেঁ সে জাণিলোঁ কাহ্ন বাটোআড় তোহ্মে।
কংশ জাণায়িআঁ তোক কাটায়িব আহ্মে।। ২
এত কাল আসি জাই করোঁ মো গোআলী।
কভোঁহো আহ্মারে কেহো না বুইল ধামালী।।
এবেঁ যশোদার পো মর বনমালী। ধামালী বোলের পালাঊক সলী।। ৩
কি না ভআঁ গেল মোর মথুরাক জাইতেঁ।
ভাণ্ড ভাঁগি দধি খাইলে নান্দের পুতে।।
এভোঁহো কাহ্নাঞিঁ মোক জাইতেঁ দেহ ঘর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবর।। ৪
ধানুষীরাগ ।। একতালী ।।

১১৫ – রাধে দুপহর বেলে কদমের তলে

রাধে দুপহর বেলে কদমের তলে বলেঁ খাইলোঁ তোর দহী।
আহ্মার আন্তরে কোণ মন্তরে না জাণোঁ কি দিলেঁ ত… ।।
তেকারণে মোর চিত্ত বেআকুল তোঁ ছাড়ী না জাণো আন।
আইস রাধা যাই বৃন্দাবন রাখ গোকুলের কাহ্ন।। ১
রাধা কি দিআঁ করায়িলি বাই।
তিরি হআঁ রাধা পুরুষ না মার বারেক রাখহ কাহ্নাঞিঁ ।। ধ্রু
ভোখে ভাত নাহিঁ খাওঁ রাধা শোষে পাণী নাহিঁ পীওঁ।
তোর বিরহে চিত্ত বেআকুল।
তোর দরিশনে জীওঁ … আহোনিশি মোর চিত্ত বেআকুল।।
বাপ নান্দ ঘোষ চাহিআঁ বুলে ঘরক মন না জাএ।
মাঅ যশোদা কান্দিআঁ বিকল ঘরে সোআথ না পাএ।। ২
তিরীর যৌবন রাতির সপন যেহ্ন নদীকের বাণে।
আপণ পুনে উত্তম জনে হাথে তুলিআঁ দেহ দানে।।
নানা তরুয়র যে ফল ফলে আপণে তাক না ভখে।
সংসার আসার পর উপকার করিলেঁ কিরীত থাকে।। ৩
গোআল জাতী তোঁ ভর যুবতী নিতি বিকে যাসি হাটে।
তোর রূপ দেখি সব জন মোহে মঞ্জরে সুখান কাঠে ।।
আহ্মে দামোদর বিরহে কাতর তোর সুরতির আশে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। রূপক ।।

১১৬ – ধিক জাঊ নারীর যৌবনে

ধিক জাঊ নারীর যৌবনে। মোর দুঈ আখি ধারা শ্রাবণে।
লোটাআঁ লোটাআঁ কান্দে রাহী। মোরে হাট জাইতেঁ না দিলে কা[৫৬/২]হ্নাঞিঁ ।। ১
বুধি বোল দারুণী বড়ায়ি। মোকে কাল হআঁ লাগিল কাহ্নাঞিঁ ।। ধ্রু
কথা ছিল আছিদর কাহ্নে। কেহ্নে মোর রূপ বাখানে।।
ধরি লআঁ জাএ কুঞ্জতলে। আর সুরতি চাহে বলে ।। ২
বোলে ভোখে ভাত নাহিঁ খাওঁ। আর শোষত পাণি নাহিঁ পীওঁ ।।
বিরহে পোড়েক সব গাএ। কাহ্ন নিলজ মামীক রতি চাহে।। ৩
ঘৃত দুধেঁ সাজিলোঁ পসারা। মোএঁ বিকে জাইতেঁ না পাইলোঁ মথুরা।।
এবেঁ মোরে রে বোল উপদেশে গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
মালবশ্রীরাগ ।। রূপক ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

১১৭ – বাসিত ফুলেঁ রাধা বান্ধসি কেশ

বাসিত ফুলেঁ রাধা বান্ধসি কেশ। আহ্মাত না পাত রাধা নাগরীবেশ।।
ভাণ্ড ভাঁগিআঁ তোর খাইবোঁ দহী। পরিঘাঊ আসি তোর আইহন কহী।। ১
মোরে দাণ দিআঁ যাহা সুন্দরি রাধা। নহে রূপ যৌবন থুইআঁ যাহা বান্ধা।। ধ্রু
লঙ্কার বারণ বীর করিলোঁ চুর। হেলেঁ দলিবোঁ তোর রাজা কংসাসুর।।
শোণিতপুর গিআঁ বধিবোঁ বারণ। যমুনার তীরে এবেঁ সাধোঁ মাহাদাণ।। ২
অসত্য না বোলোঁ বোঁলো সত্য পরমান। শতেক কুড়িএঁ রাধা নৈলোঁ মাহাদান।।
এহাত সুন্দরি রাধা না পাত ধান্ধা। নহে রূপ যৌবন দিআঁ যাহা বান্ধা।। ৩
নহুলী যৌবন হের তোর পরবেশ। নেত বসন রাধা পিন্ধিলেঁ সুবেশ।।
ছাড়িল সকল দান বৈশ মোর পাশ। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।

১১৮ – বসি থাকে কদমের তলে

বসি থাকে কদমের তলে। বল করে দাণের ছলে।।
যবেঁ কাহ্নঞিঁ করিবেক বলে। ঝাঁপ দিবোঁ যমুনার জলে।। ১
বুলিহ আইহন ঘরে। রাধা পড়িলী কাহ্নের বেঢ়ে ।। ধ্রু
তার মাঅ ননন্দ আহ্মার। সকল ভুবনে পরচার।।
আপণ খাআঁ বোলে ধামালী। সম্বন্ধ না মানে বনমালী ।। ২
বাহুর বলয়া লএ কাঢ়ী। কানের হিরাধর কাঢ়ী ।।
কাঞ্চুলী টানএ মোর গাএ। কেহো এথাঁ নাহিঁক সহাএ ।। ৩
শুন তোহ্মে আহ্মার বচনে। জাণা গিআঁ গোআল আইহনে।।
না দিবোঁ কাহ্নাঞিঁরে আশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
মালবশ্রীরাগ ।। যতি ।।

রাধায়া বচনং শ্রুত্বা জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

১১৯ – নিতি নিতি যাসি রাধা মথুরা নগরে

নিতি নিতি যাসি রাধা মথুরা নগরে। তোর মাহাদান মোঁ সাধোঁ সকলে।। ১
কে তোরে দিল দান কথাঁ তোর ঘরে। সরুপেঁ কাহ্নাঞিঁ মোকে কহ ত উত্তরে।। ২
থাকোঁ মো গোকুলে নান্দেযশোদার ঘরে। মাহাদান সাধো মোএ তোহ্মর আন্তরে।। ৩
রাজা কংসাসুরে মোএঁ করিবোঁ গোহারী। তোহ্মার জীবন তবেঁ নাহিঁক মুরারী।। ৪
তোর কংস রাজা মোএঁ মারিবোঁ পরাণে। যমুনার তীরে সাধিবোঁ মাহাদানে।। ৫
ভাগিনা হইআঁ কৈলী পাপত মতী। আজি হৈবে তোহ্মার পাঁচ সঙ্গতী।। ৬
তিরীকলা মোর থানে না পাত তোঁ রাহী।
বিণি কাহ্ন সম্বোধেঁ গমন তোর নাহী।। ৭
কাচল না পাত তোহ্মে শুণ হে মুরারী। নাহীঁ দান বথু জাএ মথুরা নগরী।। ৮
করপূর সম দধি দুধের পসার। তাহাত দান রাধে বহুত আহ্মার ।। ৯
ঘোল দধি দুধ মোর মেলিলেক পাণী। এবোঁহো ছাড়হ মোরে দেব চক্রপাণী।। ১০
বিণি রতী দিআঁ তোর নাহিক গমন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ১১
কোড়ারাগ ।। রূপক ।। লগনী ।।

১২০ – বসিআঁ থাক কদমের তলে

বসিআঁ থাক কদমের তলে। দান সাধসি যমুনার কূলে।।
ষোল শত গোপী করসি বলে। কংস শুণিলেঁ মরি জাইবি হেলে।। ১
দানের কে তোঁ শুন মুরারী। আইহন বীরের সে আহ্মে নারী।। ধ্রু
মিছা পাতি দান করহ জংজাল। আপণা না চিহ্নাসি গো রাখোআল।।
আতি আছিদর নহ কাহ্নাঞিঁ। ঝগড় তেজ আহ্মে হাটক জাই।। ২
যবেঁ পথ মোরে কারিবি বল। তবেঁ হৈবে তোর মাথার ফল।
লোকে হৈবোঁ মোএঁ পুরুষবধী। এভোঁহো তেজহ হেন নঠ বুধী।। ৩
গুণী আগু পাছ আপণ মনে। অনুমতি দেহ মোর গমনে।।
আহ্মার দানের তোঁ এড় আশে। বাসলী বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
শৌরীরাগ ।। রূপক ।।

১২১ – তোহ্মার যৌবনে রাধা মোর

তোহ্মার যৌবনে রাধা মোর গেল মনে। আনেক চিন্তিআঁ লৈলোঁ এহা পথে দানে।।
বোল চালেঁ হাট জাইতেঁ চাহসি সুন্দরী। এতেকে বুঝিএ তোহ্মার বড় আছিদরী।। ১
কিকে বোলসি রাধা মোর মিছা দানে। আহ্মে বাটে মাহাদানী সব লোকেঁ জাণে ।।ধ্রু
না জানসি রাধা তোঁ আহ্মার মরম। গোকুল রাখিল আহ্মে বুঝিআঁ ধরম।।
এবেঁ মো তোহ্মাক লাগী ভৈলোঁ মাহাদানী। সরূপেঁ জাণহ আহ্মে দেব চক্রপাণী।। ২
পুরুষ বধের যদি ভয় তোর মনে। তবেঁ জীউ রাখ মোর একই চুম্বনে।।
এহাত সুন্দরি রাধা না কর তোঁ আন। তোহ্মার করিব আহ্মে উচিত সমান।।৩
আহ্মার মজিল মন তোহ্মার যৌবনে। আহোনিশি বেআকুল ভৈলোঁ তেকারণে।।
বিবুধি তেজিআঁ দেহ নিধুবনে আশ। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাস।। ৪
ধানুষীরাগঃ ।। একতালী ।।

১২২ – জিতে পরকার নাহীঁ বোল মাহাদানী

জিতে পরকার নাহীঁ বোল মাহাদানী। লোক ধরম নাহিঁ শুণী।।
ষোল শত গোপীজন সহ্মাক তেজিআঁ। সোদর মাঊলানী পাইলী চাহিআঁ।। ১
মো কেহ্নে জাণিবোঁ কাহ্নাঞিঁ পথে মাহাদানী। একবার দিআর মেলানী।। ধ্রু
গরু রাখোআল তোহ্মে ধরম কারণে। তবেঁ কেহ্নে পরদারে মণে।।
সরূপেঁ যবেঁ তোহ্মে দেব বনমালী। তবেঁ কেহ্নে হেন কাম করী।। ২
নটক কাহ্নাঞিঁ তোর রাখোআল মতী। বুঝিল তোহ্মার যেহেন জাতী।।
সব সখিজন মোকে ছাড়ী কৈল গতী। একসরী ভৈলোঁ নিমাথিতী।। ৩
এড়হ আহ্মারে কাহ্ন না কর কচাল। হোর আইসে আইহন গোআল।।
এহা জাণী ঝাঁট ঘুচ আহ্মার পাশে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪
বেলাবলীরাগ ।। রূপক ।।

১২৩ – যমুনাত পার করী বাপ বসুলে

যমুনাত পার করী বাপ বসুলে। মতিমোষেঁ আহ্মা থুইল গোআলার কূলে।।
জরম ভৈল মোর দৈবকী উদরে। নিন্দ না জাএ কংস আহ্মার ডরে।। ১
না কর আল রাধা মিছাএ জংজাল।
কোণ সকতী আইসে আইহন গোআল।। ধ্রু
দান খুঁজিতে মোকে দেখাষসী সহী। আঅর বোলসি আহ্মাত বাকী নাহীঁ।।
আহ্মার আগুত রাধা না বোল মিছাএ। আলিঙ্গন দিআঁ যাহা আপণ ইছাএ ।। ২
দধি দুধ লআঁ যাহা মথুরার হাট। নান্দের নন্দন কৃষ্ণ এবেঁ লৈল বাট।।
আহ্মা সমে রাধা তোএঁ না কর বাখান। বার বরিষের মোর দেহ মাহাদান ।। ৩
বারেঁ বারেঁ ভাঙ্গী রাধা গেলা মোর দাণে। আঁচলে ধরিলোঁ হের যাইবি কেনমনে।।
দান ছাড়ী এবেঁ চাহে আলিঙ্গন কাহ্নে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ৪
রামগিরীরাগ ।। আঠতালা ।।

১২৪ – ঘরের বাহির হৈতেঁ তেলিনি

ঘরের বাহির হৈতেঁ তেলিনি তেল বিচিতেঁ
কাল কাক রএ সুখান গাছের ডালে।
আগেঁ সুনা ঘটে নারী হাঁছী জিঠিহো না বারী
চলিলোঁ তাহার উচিত পাওঁ ফলে।। ১
আঁচলে না ধর কাহ্নাঞিঁ … ।
এড় কাহ্নাঞিঁ যাইবোঁ মথুরার হাটে।। ধ্রু
হের মথুরার হাটে লক্ষ জন রহে [৬০/১] বাটে
সহ্মাক এড়িআঁ আহ্মার লহ পরাণে।
বিহা না কর আপণে কিসকে রাখহ ধনে
আপনে না ভুঁজ পরাক না কর দানে।। ২
ভাগিনা তোহ্মাক জাণী আহ্মে তোর মাঊলানী
বল করিতেঁ মেদনী উলটে জাএ।
তোহ্মে ত গোআল জাতী ছাড়হ হেন বিমতী
ঘর গিআঁ সম্বন্ধ পুছ মাএ।। ৩
আহ্মে আতিশয় বালী নবনীদল কোঁয়লী
এহা বুঝি তেজ কাহ্নাঞিঁ আহ্মার পাশে।
মল্লিকাকলিকা পাশে ভ্রমর না পাএ রসে
গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
দেশাগরাগ ।। ক্রীড়া ।।

১২৫ – তোর রূপ দেখি গদাধর

তোর রূপ দেখি গদাধর। মদনে বেধিল আন্তর।।
তোর বস ভৈল বনমালী। বিমতি ছাড়হ চন্দ্রাবলী।। ১
কেহ্নে দুখ ভাবহ মনে। দেহ মোরে সরস বচনে।। ধ্রু
এ তোর উন্নত যৌবনে। নিফল কর অকারণে।।
থিরমতী বুঝহ আপণে। অনুচিত না বোল বচনে।। ২
তভোঁ নাহিঁ তেজোঁ তোহ্মারে। যদি জাএ জীবন আহ্মারে ।।
তোহ্মাত মজিল মোর মণে। নিবারিব কাহার পরাণে।। ৩
আঁচলে ধরিলোঁ রতি আশে। কেহ্নে মোর কর[৬০/২] নিরাসে।।
মনসুখেঁ বৈশ মোর পাশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
গুজ্জরীরাগ ।। রূপক ।।

১২৬ – আঁচলে না ধর কাহ্ন ডরেঁ কাঁপে

আঁচলে না ধর কাহ্ন ডরেঁ কাঁপে গাঅ। না জাণো শিশুমতী সুরতির ভায়।।
আপণা ছাওয়াল বুঝি বড়ঈ বড়ায়ি। কাঁচ ফল ভাঁগিলে কিছু রস না পাই।। ১
বারেক তেজ কাহ্নাঞিঁ ল জাইবোঁ মথুরা। ফুলের নাঅ কাহ্নাঞিঁ নাহি সহে ভরা।। ধ্রু
মালতীমল্লিকাকলিকাত নাহিঁ গন্ধ। এহা জাণী তেজ কাহ্নাঞিঁ মোর অনুবন্ধ।।
তাবত রস নাহিঁ ডালিম ডাকরে। ভাল মতেঁ যাবত নাহি পাকএ ভিতরে।। ২
বোল এক বোলোঁ তোকে সুনহ অবুধ। জুড়ায়িলেঁ সোআদ লাগে তপত দুধ।।
তপত দুধ কাহ্নাঞিঁ নালে না পীএ।
ভুখিল হয়িলে কাহ্নাঞিঁ দুঈ হাথে না খাইএ ।। ৩
কিছুই না জাণো মোএঁ আতিশয় বালী। এবেঁ মোর আশা তেজ দেব বনমালী।।
ক্ষমা কর ঘর যাহা দেব গদাধর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবর।। ৪
কোড়ারাগ ।। অঢুক্ক ।।

১২৭ – সাবধান মনে রাধা সুন মোর বোল

সাবধান মনে রাধা সুন মোর বোল। সরস হৃদয় করি দেহ চুম্ব কোল ।। ১
না বোল না বোল হেন দেব চক্রপাণী।। মোর কানে না সাম্বাএ তোর দুষ্ট বাণী ।। ২
কভোঁ রাধা নাহিঁ বোলোঁ মোএঁ পাপবাণী ।
তোহ্মে নারী মোর নহ আইহনের রাণী।। ৩
এ বোল তোহ্মার কাহ্নাঞিঁ সহিতেঁ না পারী।
কোণ কালত কাহ্নঞিঁ আহ্মে তোর নারী।। ৪
রামায়নকথা রাধা কহিল তোহ্মারে। তভোঁহো মুগধী রাধা না চিহ্ন আহ্মারে।। ৫
কত মিছা বোলহ সুন্দর বনমালী। তোর বোলে ভাণ্ডায়িলি নহে চন্দ্রাবলী।। ৬
মুগধী গোআলী তোঁ না বুঝসি কাজ। রতিরসেঁ তোষ মোরে পরিহরী লাজ।। ৭
নাহিঁ জাণো রতিরস দেব দামোদর। একবার দয়া করী আহ্মা পরিহর।। ৮
জিঅতেঁ না এড়ে রাধা কাহ্নাঞিঁ তোর পাশ। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাস।। ৯
রামগিরীরাগ ।। একতালী।। লগনী ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং।।

১২৮ – বোলেঁ প্রবোধিতেঁ সুন বড়ায়ি

বোলেঁ প্রবোধিতেঁ সুন বড়ায়ি ল বড় নাটক কাহ্নাঞিঁ।
ঘরক জাইতেঁ মোর সুন বড়ায়ি ল কিছু উপায় নাহীঁ।। ১
কাহ্নঞিঁ বড় দুরুবার সুন বড়ায়ি ল তোহ্মে কর প্রতিকার।। ধ্রু
কাহ্নাঞিঁর হাথে পড়ী সুন বড়ায়ি ল মোএঁ হারাইলোঁ বুধী।
উদ্ধার পাইএ যেন সুন বড়ায়ি ল তোহ্মে চিন্ত সেহী বুধী।। ২
না জাণাইহ কাহ্নাঞিঁকে সুন বড়ায়ি ল তবেঁ নহে নহে মোর ডর।
সুণিলেঁ সে আস পাইব সুন বড়ায়ি ল কাহ্ন বড় আছিদর।। ৩
যুগতী করিউ এবেঁ সুন বড়ায়ি ল তোর মোর এক মনে।
গাইল বড়ু চণ্ডীদাস সুন বড়ায়ি ল বাসলীগণে।। ৪
কোড়দেশাগরাগ ।। একতালী ।।

১২৯ – না জাইব আল রাধা মথুরা নগর

না জাইব আল রাধা মথুরা নগর। বাটে দুরুবার কাহ্নাঞিঁ নান্দের সুন্দর।। ১
নিছন লইআঁ কাহ্নঞিঁ থাকু এক বাটে। আন পথে যাইব বিকে মথুরার হাটে।। ২
যে বাটে যাইবি হাট দধি ঘৃত লআঁ। সবই কাহ্নাঞিঁ তোর খাইব তথা গিআঁ।। ৩
সেহো পথে যবেঁ কাহ্নাঞিঁ করে মোরে বল। তোর মোর মেলিআঁ করিব তার ফল।। ৪
দধি দুধ খাইবেক ভাঁগিবেক ভণ্ড। হৃদের কাঞ্চুলী তোর করিবে খণ্ড খণ্ড।। ৫
কাহ্নাঞিঁ দেখিআঁ বড়ায়ি তোকে লাগে ডর। মাগুকিলে মারোঁ আজি যবেঁ করে বল।। ৬
এথাঁসি সুন্দরি রাধা কর কাঠদাপ। তথাঁ গেলেঁ হইবি যেহ্ন বাদিআর সাপ।। ৭
তোহ্মার বচনে বড়ায়ি মোতে ভৈল ভএ। কি বুধি করিব এবেঁ বোলহ উপাএ।। ৮
দারুণ কাহ্নাঞিঁ দুরিত তার মন। চল রাধা পথ এড়ি যাইউ বনে বন।। ৯
বনে যাইতেঁ বড়ায়ি কাহ্নাঞিঁ যবেঁ পাএ। তবেঁ না করিব বড়ায়ি কমণ উপাএ।। ১০
দারুণ কাহ্নাঞিঁ যবেঁ লাগ পাএ বনে। অপণেহি তবেঁ রাধা দিবোঁ মাহাদাণে।। ১১
নটক কাহ্নাঞিঁ যবেঁ নাহিঁ লএ দাণে।
তবে কি করিব কাহ্নাঞিঁ চিন্তহ আপণে।। ১২
যে বুধি এড়ায়িএ রাধা সে বুধি করিব। ঘরে গেলেঁ ভাল মন্দ কিছু না কহিব।। ১৩
যতনে চিন্তিহ বড়ায়ি কিছু পরকার। যেমতেঁ আহ্মার হএ এবার উদ্ধার।। ১৪
বিণি রতি পাইলেঁ কাহ্নাঞিঁ না এড়িব তোরে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবরে।। ১৫
পাহাড়ীআরাগ ।। একতালী ।। লগনী

১৩০ – নাহিঁ পুরে কাহ্নাঞিঁর প্রথম যৌবন

নাহিঁ পুরে কাহ্নাঞিঁর প্রথম যৌবন। তবেঁ কেহ্নে রতি প্রতি এত বড় মন।।
এড়ায়িবারে কৈল বড়ায়ি এত পরকার। এখোই না ধরে কাহ্নাঞিঁর উমত আকার।। ১
আহ্মা সমে সুরতি কাহ্নের না জুআএ। মাণিকে হিরাক বিন্ধে কে বা পাতিআএ।। ধ্রু
তাহার হোতিত নহে আহ্মার মরণ। হেন কাজ করিতেঁ তাহার কেহ্নে মন।।
এথো না বুঝিএ বড়ায়ি কাহ্নের চরীত। যত কথা কহে কাহ্নাঞিঁ সব বিপরীত।। ২
পরাক না পুছে কাহ্নাঞিঁ না বুঝে আপণে।
তাহাক উপায় নাহিঁ এ তীন ভুবনে।।
সব লোক বোলে তারে কাহ্ন শিশুমতী। এখো জন নাহিঁ জাণে তার কাজগতী।। ৩
হেন পড়িহাসে কাহ্নাঞিঁ তোহ্মার কি মনে। মোর প্রতি যোগ হএ নান্দের নন্দনে।।
মাকড়ের যোগ্য কভোঁ নহে গজমতী। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগতী।। ৪
রামগিরীরাগ ।। আঠতলা ।।

রাধিকাবাচমাচম্য জরত্যা প্রতিপাদিতং।
জগাদ চতুরঃ কৃষ্ণঃ সতৃষ্ণো রাধিকামিদং।।

১৩১ – অবুধ গোআলি না বুঝ মতিমোহে

অবুধ গোআলি না বুঝ মতিমোহে। বিরহে বেআকুল কাহ্নাঞিঁ বেড়াএ বিছোহে।।
তোহ্মাত লাগিআঁ কাকুতি করে কাহ্ন। তোহ্মার অন্তরে পথে সাধোঁ মাহাদান।। ১
তোহ্মার আনুমতীএঁ মাণিকে হিরা বান্ধে।
বিরহে বিকল কাহ্নাঞিঁ কাপড় না পিন্ধে ।। ধ্রু
তোহ্মাক চিন্তিআঁ কাহ্নাঞিঁ ভাত নাহি খাএ। চারি পহর রাতি নিদ্রাহো না জাএ।।
আইস বোলোঁ গোআলিনী সুণ মোর বোল।
জিআঅ কাহ্নাঞিঁ রাধা দিআঁ চুম কোল।। ২
কণ্ণের কুণ্ডল তোর মাণিক উজলে। সিসের সিন্দূর ভুজবলএ উজলে।।
সফল করহ দেহা দেহ আনুমতী। কথাঁ না দেখিলী রাধা নারী হএ সতী।। ৩
কাহ্নাঞিঁর নেহা রাধা বড় পুনে পাইএ। মইলেঁ মুকুতি কিবা সুরপুর জাইএ।।
এবোঁহে সুন্দরি রাধা পুর মোর আশ। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাস।। ৪
দেশেবরাড়ীরাগ ।। একতালী ।।

কৃষ্ণস্য বচনং শ্রুত্বা রাধিকাধিমতী সতী।
বেপমানতনুস্তন্বী জগাদ জরতীমিদং ।।

১৩২ – তোহ্মেযবেঁ বোল বড়ায়ি হেন

তোহ্মে যবেঁ বোল বড়ায়ি হেন সতন্তরে। আহ্মার নিস্তার তবেঁ নাহিঁক দুতরে।।
সুণিলেঁ আইহন মোরে করিব অপোষ। তোহ্মে এক ভিতে হৈবেঁ আহ্মা লআঁ দোষ।। ১
এবেঁসি জানিলোঁ তোর ভাল নহে মনে। যবেঁ কাঢ়ায়িলি বাট দুসহ আরণে।। ধ্রু
তোহ্মে বড়ায়ি বোলে চালে হআঁ যাবি পার। আহ্মেত করিব তথাঁ কৌণ পরকার।।
বল করি ছিণ্ডিবেক সাতেসরী হার। দেখিআঁ বা কি বুলিব ঘরের গোআল।। ২
আকারণে এহা পথে আণায়িলি মোরে। মিছেঁ ছাচেঁ কাহ্নাঞিঁ ভাণ্ডাআঁ যাই ঘরে।।
এবার ভাণ্ডাআঁ যবেঁ কাহ্নাঞিঁক জাইএ। আর বার তবেঁ বড়ায়ি মথুরা না জাইএ।। ৩
তোঁ হেন বড়ায়ি ছিতে মোর হএ ডরে। এ পুণি তোহ্মার লাজ বুঝহ অন্তরে।।
এহা জানি যেহি যোগ্য সেহি থীর কর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবর।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

মদীয়মানসোল্লাসি সাধুক্তং রাধিকে ত্বয়া।
অদরস্মসুচঃ পাহি দুস্বনং সর্ব্ববর্ণ্ণনা।।

১৩৩ – বনে বনে পালাইআঁ রাধা যবেঁ

বনে বনে পালাইআঁ রাধা যবেঁ জাএ। আগুছিআঁ বাটে তবেঁ কাহ্নাঞিঁ রহাএ।।
তাক দেখি বড়াই পালটি অথবেথে। অতিবড় ঠেণ্ঠালি রহিলী মূল পথে।। ১
একসরী রাধা দেখি কাহ্নাঞিঁ মনে গুণে। পালিল বড়ায়ি মোর পূর্ব্ববচনে।। ধ্রু
বড়ায়ি বড়ায়ি বুলি অঝর নয়নে। কান্দএ একসরী রাধা মাঝ বনে।।
লোহ মুছিআঁ কাহ্ন আপণ বসনে। না করিহ ভয় রাধা বুলিল বচনে।। ২
এবেঁ দেখ মোর মুখ তুলী দুয়ি আখী। এহা ঘোর বনে রাধা কেহো নাহিঁ সাখী।।
তোহ্মার আহ্মার রাধা প্রথম যৌবন। সুরত সংভোগে করী সফল জীবন।। ৩
দূর করোঁ তোর হার ঘন পীন তনে। আঅর সন্দেশ লওঁ বাহুর কঙ্কনে।।
এবেঁ রসমনে রাধা কর পরিহাস। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাস।। ৪
কেদাররাগ ।। রূপক ।।

১৩৪ – হার মোর ছিণ্ডি নিলেঁ

হার মোর ছিণ্ডি নিলেঁ বাহের কঙ্কন। না জাণো কাহ্নাঞিঁ তোর কত ধারোঁ ধন।। ১
মো কেহ্নে জাণিবোঁ এথাঁ হৈবোঁ একসরী। এড় কাহ্নাঞিঁ যাইবোঁ ঘর মথুরা নগরী।। ২
ঘৃত দধি লআঁ যাহ মথুরার হাট। বিণি সুরতিএঁ তেজি নাহিঁ দিবোঁ বাট।। ৩
মোর ভাগে দৈবে কৈল তোহ্মা একসরী। এবেঁ কাহ্নাঞিঁকে তোষ ভয় পরিহরী।। ৪
সামী মোর দুরুবার সাসুড়ী সশুর।
এড় কাহ্নাঞিঁ যাইব দূর আস্ত জাএ সূর।। ৫
না কর বিলম্ব রাধা পরিহর ভয়। দেহ আলিঙ্গন রাধা থাকু পরিচয়।। ৬
রাজা খরতর পাটে আতি দুরুবার। তাক মোর বড় ভয় এড় একবার।। ৭
আহ্মাতে ভজিলেঁ তোর কাখো নাহিঁ ডর। ত্রিভুবননাথ আহ্মে দেব গদাধর।। ৮
এবার তেজহ কাহ্নাঞিঁ নান্দের নন্দন। দিনা কথো গেলেঁ তোর ধরিবোঁ বচন।। ৯
হাথে নিধী পাইলেঁ রাধা কে এড়িতেঁ পারে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবরে।। ১০
ভাঠিআলীরাগ ।। রূপক ।। দণ্ডক ।।

অথ রাধা বনে বীক্ষ্য হরিমেকাকিনী পুরঃ।
সুচিরং চিন্তয়ামাস সলজ্জভীরকৌতুকা।।

১৩৫ – না দেখিল না শুণিল কোণ কুঞ্জবনে ছিল

না দেখিল না শুণিল কোণ কুঞ্জবনে ছিল যেহ্ন দেখোঁ বাটে বাটোআড়।। ধ্রু
এহি মথুরা নগরে যাওঁ বারহ বসরে কথাঁ কেহো না কৈল উত্তরে।।
বুঝিল কাহ্নের মন ভিড়ি চাহে আলিঙ্গন মোরে বল করে নারায়ণ।। ১
ছিণ্ডিআঁ মুকুতার হার ভাঁগিবোঁ বলয়া আর না ধরিআঁ কাহ্নের বচনে।।
যাইবোঁ রাজদুআরে কংসে করিবোঁ গোচরে তবেঁ লোকেঁ দোষ দিব মোরে।। ২
রাজা বড় দুরুবার আইহন খুরের ধার কেহ্নে কাহ্ন হেন পড়িহাসে।
বাসলীচরণ শিরে বন্দিআঁ ল গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৩
দেশবরাড়ীরাগ ।। আঠতালা ।।

ভয়ং কংশাভিমন্যুভ্যোম্মনুষে মানসে কথং।
রাধিকে রসসন্দোহসাধিকে শৃণু মে বচঃ।।

১৩৬ – দাতা বলি ছলিআঁ মো নিলোঁ

দাতা বলি ছলিআঁ মো নিলোঁ পাতালে। করে গিরি ধরিআঁ মো রাখিলোঁ গোকুলে।।
বেদ উদ্ধারিতেঁ কৈলোঁ মীন অবতার। পাতাল গিআঁ তার করিলোঁ উদ্ধার।। ১
যৌবনগরবেঁ রাধা না চিহ্নসি মোরে। শ্রীধররূপেঁ হরিআঁ নিবোঁ তোরে।। ধ্রু
তনুত বরাহরূপেঁ থাকি বনভাগে। মেদনী ধরিল আহ্মে দশনের আগে ।।
শ্রীরামরূপেঁ আহ্মে বধিল রাবণ। আহ্মার আগত বীর নাহিঁ কোণ জন।। ২
দূতা পাঠায়িআঁ আহ্মে নিব ত গোকুলে।
বাটত যাইতেঁ মো করিবোঁ অলঞ্জালে।।
তোর রাজ কংসের মো করিবোঁ নিপাত। কেহ্নে রাধা মনত গুণসি পাঁচ সাত।। ৩
অসুরকুলদলন হরি মোর নাম। এবেঁ তোর তরেঁ কৈল অবতার কাহ্ন।।
রসমনে তোষ রাধা নান্দের নন্দন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪
বসন্তরাগ ।। একতালী ।।

১৩৭ – সুরত সংভোগেঁ তার না পুরিবে

সুরত সংভোগেঁ তার না পুরিবে আহা। আপণার মনত আপণে গুণি চাহা।
অরতী বাধিত হআঁ পাপ করিবেঁ। জরমক তরেঁ কুলে কলঙ্ক থুইবেঁ।। ১
কাহ্ন মনে পরিভায়। আহ্মা সমে যোগ নহে সুরতী।। ধ্রু
উচিত কমলে ভোগ করএ ভ্রমরে। আহ্মার মুকুলে নাহিঁ পাএ মধুভরে ।।
ইঞ্চলা খাআঁ কাহ্ন বার পাড়িবে। আঘোর পাপেঁ তোএঁ গায় বেআপিবেঁ ।। ২
পরদারসুরতী করিতেঁ না জুআএ। ভাতের ভোখ কাহ্নাঞিঁ ফলেঁ না পালাএ।।
একবার রতীএঁ মদন রাঢ়ে চিতে।
প্রজল আনল কাহ্নাঞিঁ না নিবাএ ঘৃতে।। ৩
মনে পড়িভায় কাহ্নাঞিঁ আহ্মার বচন। তোর প্রতি যোগ নহে আহ্মার যৌবন।।
আগ পাছ করি কাজ কর মাহাজন। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণ।। ৪

গুজ্জীররাগ ।। রূপক ।।

তক্রবিক্রয়নবৃদ্ধয়া ধিয়া বঞ্চিতা পরচয়েসি মামকে।
রাধিকেহস্মি ননু গোপশাবকঃ কংশবংশদবদাবপাকঃ।।

১৩৮ – ছাওআল না দেখিহ মোরে

ছাওআল না দেখিহ মোরে রাধা ল আল জাণওঁ রতি সকল।
তোহ্মে অনুমতী রাধা দেহ হের ধরিলোঁ আঁচল।। ১
বল না কর মোরে কাহ্নাই ল আল বচন আহ্মার শুণ।
দেব ধরম কি সহিব তোরে এহাত হৃদয়ে গুণ।। ২
তবেঁসি ধরমের ভয় রাধা ল আল যদি মোএঁ হরোঁ পরনারী।
অপণ অঙ্গের লখিমী হইআঁ তোহ্মে না চিহ্নসি অনন্ত মুরারী।। ৩
পুরুব জরমে কাহ্নাঞিঁ আছিলোঁ বা তোর নারী ।
ইহ জরমে কে বা পাতিআএ অপণে বুঝহ মুরারী ।। ৪
ছার তিরী বামা জাতী রাধে ল আল তোহ্মাতে কর পরতয়।
আহ্মাত আধিক কোণ দেহ আছে কারে করসি তোঁ ভয়।। ৫
ঘরত নিজ পতী আছে কাহ্নাঞিঁ ল আল ভাগিনা শুন বনমালী।
তীন লোক খাআঁ তোহ্মার জরম কাহারে বোলসি ধামালী ।। ৬
হসিত বদন কর রাধা ল আল ধরিলোঁ তোর আঁচল।
হংস সরোবর পাইলেঁ অবসই হরিএঁ ভুঞ্জে কমল।। ৭
হইবেক তোর মোর সুরতী কাহ্নাঞিঁ ল আল দুইহাঁর হঊক কুশল।
সুরতি রসত সুন্দর কাহ্নাঞিঁ আরতী কিছু নাহিঁ ফল।। ৮
বিলম্ব করিতেঁ নারোঁ রাধা ল আল বচন আহ্মার ধর।
বিজন বনত তোহ্মা দেখিআঁ হাণিল কুসুমশর।। ৯
তোহ্মার চরিত্র দেখিআঁ কাহ্নাঞিঁ ল মোর মুখত না আইসে বচন।
গাইল বড়ু চণ্ডীদাস শিরে বন্দিআঁ ল দেবী বাসলীগণ।। ১০
গুজ্জরীরাগ ।। রূপক ।।

অথ রাধা বনে বীক্ষ্য হরিং চরিতমীদৃশম্ ।
সুচিরং চিন্তয়ামাস জরতীম্প্রতি রোষতঃ।।

১৩৯ – ছারে খারে জাউ মুগধী বড়ায়ি

ছারে খারে জাউ মুগধী বড়ায়ি অনল বুলাওঁ গাএ।
মাঝ পান্তরে বাট কাঢ়ায়িআঁ গেলি আপণ ইছাএ।।
আইহনরাণী পরেঁ বিগুতে সে কেমনে ধরএ বুকে।
তার নাতী কাহ্নাঞিঁ পথে বিরোধে তাহার মনে সুখে।। ১
জায়িবাক নান্দে মোরে বল করে দুরুজন নান্দের পো।
হেন বাটে বাটে কাঢ়ায়িল দারুণী বড়ায়ি গো।। ধ্রু
আঁচলে ধরে অনুবন্ধ করে কোণ বুদ্ধি করোঁ এড়ায়িতিঁ।
খেড় আগুণী এক করিআঁ বড়ায়ি গেলী এক ভিতে।।
দহি নঠ মোর ঘোল নঠ মোর আইলোঁ বাট হারাআঁ ।
কাহ্নাঞিঁর হাথে পাঞ্চ আবথা বড়ায়ির মাথা খাআঁ।। ২
ভর পান্তরে তিরী বধ করে কাঞ্চুলী চিরিল টানে।
হিআ খণ্ড খণ্ড নখের ঘাএ হিছোলেঁ লএ পরাণে ।।
লঙ্গ মালতীএঁ খোঁপা ভরাআঁ ভিড়িআঁ বান্ধে লোটনে।
যশোদার গরভে কাহ্ন উপজিল না মানে গুরুজনে।। ৩
সাসুড়ী ননন্দ খুরের ধার সামী বড় দুরুবার।
হেন গতি গাএঁ ঘরক জায়িবোঁ কেমনে হয়িবে নিস্তার।।
হেন পরিভাবি চাহিল রাধা কাহ্নক আড় নয়নে।
গাইল বড়ু চণ্ডীদাস শিরে বন্দিআঁ দেবী বাসলীচরণে।। ৪
পাহাড়ীআরাগ ।। ক্রীড়া ।।

১৪০ – এ তোর আড় নয়নে আল পাঞ্জর

এ তোর আড় নয়নে আল পাঞ্জর বেধিল ঘুনে পাঞ্জর বেধিআঁ বুকত লাগিল ঘুনে।
এবেঁ দেহ চুম্বদানে আর দেহ মধুপানে আলিঙ্গন দিআঁ বারেক তোষহ মনে।। ১
সুন সুবদনী রাধা নাএ। যুবক কাহ্নের বারেক রাখহ পরাণে।। ধ্রু
দেখিআঁ তোক রুপসী … গোর শরীর মৃগী সম দুয়ি আখী ।
মহীমণ্ডলে উজলী মেঘে যেহ্ন বিজুলী বদন সংপুন চান্দ সম তোর দেখী।। ২
কনক কুম্ভ আকারে দুঈ তোর পয়োভারে তাহাত উপর গজমুকতার হারে।
যেহ্ন শোভ করে সুমেরু গঙ্গার ধারে তাক দেখি মোর পাঅ আগু নাহিঁ সরে।। ৩
দেহার দেব মো হআঁ কলায়িলোঁ আসিআঁ সুন্দরি নাগরী রাধা তোহ্মাক দেখিআঁ।
উত্তর দেহ হাসিআঁ গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলী শিরে বন্দিআঁ।। ৪
কোড়রাগ ।। ক্রীড়া ।।

১৪১ – যবেঁ জাওঁ আল কাহ্নাঞিঁ

যবেঁ জাওঁ আল কাহ্নাঞিঁ মথুরার হাটে। আহ্মাক নেহালী তোহ্মে যাহা বাটে বাটে।।
তবেঁসি জাণিল আহ্মে দৈবের ঘটন। আহ্মা না ছাড়িব কভোঁ নান্দের নন্দন।। ১
সুন্দর কাহ্নাঞিঁ তবেঁ যাওঁ তোর কোল।
কভোঁ না লঙ্ঘিভেঁ যবেঁ আহ্মার বোল।। ধ্রু
মাথার মুকুট কাহ্নাঞিঁ ভাঁগি জুণি জাএ। যোড় হাথ করি কাহ্ন বোলোঁ তোর পাএ।।
ছিণ্ডি জুণি জাএ কাহ্নঞিঁ সাতেসরী হারে। আর নঠ না করিহ সব আলঙ্কারে।। ২
আতিশয় না চাপিহ আধর দাঁতে। সখি সব দেখিআঁ বুলিব দন্ত প্রাতে।।
নখঘাত না দিহ মোর পয়োভারে। আইহন দেখিলেঁ মোর নাহিঁক নিস্তারে।। ৩
কোঁঅলী পাতলী বালী আহ্মে চন্দ্রাবলী। ভএ কাম্পো যেহ্ন নব কদলীর বালী।।
আলিঙ্গন দিহ মোরে দয়া ধরী মনে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ৪
মালবরাগ ।। রূপক ।।

রাধিকানুমতিমাপ্য মাধবঃ শম্বরারিশরদূনমানসঃ।
অদ্‌ভুতক্রমমুদারবিক্রমো বল্গুমেবমকরোদ্রিপুক্রমং।।

১৪২ – আলিঙ্গন কৈল কাহ্নাঞিঁ নানা পরকার

আলিঙ্গন কৈল কাহ্নাঞিঁ নানা পরকার। তখন ঘুচাইল কাঢ়ী হৃদয়ের হার।।
ঘন তন জঘন মরদিল করে। নানা পরকার কৈল রাধা নখঘাতডরে।। ১
রাধার বচন পাআঁ হরষিত মনে। কিশলয়শয়নে সুরতী কৈল কাহ্নে।। ধ্রু
চুম্বিল কপোল গল আধর নয়নে। বদনে বদনে জুড়ি কৈল মধুপানে।।
মতিভোলেঁ রাধিকার দশন রসনে। বিসরী রাধার বোল চাপিল দশনে।। ২
নিতম্ব পরসি জঘনত দিল হাথ। আতি ঊতরলমতী ভৈল জগন্নাথ।।
চিরকাল ছিল যত মনোরথবন্ধে। সকল সফল কৈল রতী অনুবন্ধে।। ৩
মনতোষ ভৈল কাহ্নাঞিঁ ছাড়ে ঘন শাসে। কাঢ়ী লৈল আভরন পুন রতী আশে।।
রতী আবশেষ ভৈল রাধার তরাসে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪

রামগিরীরাগ ।। আঠতালা ।।

১৪৩ – প্রথমে কাঢ়িআঁ লৈল সাতেসরী হার

প্রথমে কাঢ়িআঁ লৈল সাতেসরী হার। কানের কুণ্ডল নিল মুকুট মাথার।।
আঅর কাঢ়িআঁ নিল গুণিআঁ গলার। আলপ বএসে কৈল বড়য়ি খাঁখার।। ১
সব আভরণ কাঢ়ি নিলেঁ বলে। বুধি বোল এবেঁ ঘর জায়িব কোণ ছলে।। ধ্রু
হাথের বলয় নিলেঁ আঅর বাহুঠী। কনককঙ্কন নিলেঁ আঅর আঙ্গুঠি।।
কনককিঙ্কিণী নিলেঁ পাএর নূপুর। বচনসরস তোহ্মে হৃদয়নিঠুর।। ২
শিরীষ কুসুম সম আহ্মে কোঁঅলী। বড় দুখ পাইল আহ্মে কাঢ়িতেঁ পাসলী।।
আলঙ্কারহীন কৈল মোর সব দেহে। বড় অনুচিত কৈল প্রথম সনেহে।। ৩
আভরণগণ রাধা এড়িল তরাসে। বাহুড়ী মেলিলী গিআঁ বড়ায়ির পাশে।।
রাধাক দেখিআঁ বড়ায়ি মনে মনে হাসে। বাসলী শিরে বন্দী গাইল চণ্ডীদাসে।। ৪

রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

১৪৪ – ঈসত হাসিআঁ বড়ায়ি পুছিল রাধারে

ঈসত হাসিআঁ বড়ায়ি পুছিল রাধারে। এত খন কথাঁ ছিলা এড়িআঁ আহ্মারে।।
সকল শরীর তোর দেখি বিপরীত। ভাল না বুঝিএ তোর একোহি চরীত।। ১
মিছা না বুলিহ মোরে পরাণনাতিনী। আহ্মার থানত কহ সরূপ কাহিনী।। ধ্রু
কে না কাঢ়ি নিলেঁ তোর সব আভরণ। আসুখিনী হেন দেখি কমণ কারণ ।।
আধর ছাড়িল তোর তাম্বুলের রাগ। হেন বুঝোঁ বনে তোর কাহ্ন পাইল লাগ।। ২
আয়াসিনী ভৈলা আজি তোহ্মে কি কারণে।
বুঝিতেঁ নারোঁ রাধা মোএঁ তোর মনে।।
তোহ্মার বিলম্ব দেখি পাইলোঁ বড় ডর। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীবর।। ৩
রামগিরীরাগ ।। রূপক ।।

১৪৫ – ভাল ভৈল বড়ায়ি মোর

ভাল ভৈল বড়ায়ি মোর ভৈল পরতেখ। নিজ পতি বিহানে আবথা মোর দেখ।।
একসরী বনে ভয় পাইলোঁ আপারে। এত দুখ দিআঁ বিধি নির্ম্মিল আহ্মারে।। ১
লয়িআঁ চল বড়ায়ি নিজ মোর দেশ। সে কাহ্নাঞিঁ লাগি ভৈল পাঞ্জর শেষ। ধ্রু
আরতি লয়িআঁ কাহ্ন মাঝ বৃন্দাবনে। সুরতি আন্তরে মোরে করিল যতনে।।
একসরী হআঁ দৃঢ় বান্ধিআঁ বসনে। জীঊত উপর ঊঠী নিবারিলোঁ কাহ্নে।। ২
সেহি কোপে কাঢ়ি নিলে সব আভরণে। আর বিগুতিল মোর সব দেহ কাহ্নে।।
কাহ্নাঞিঁ বুইল মোরে অনেক বিরূপ। তোর থানে আকপট কহিলোঁ সরূপ।। ৩
তোহ্মে আহ্মা এড়ি বড়ায়ি মাঝ বৃন্দাবনে।
কোণ কাজেঁ কথাঁ ছিলা তাক কে বা জাণে।।
বুঝিতেঁ না পারি বড়ায়ি তোহ্মার মনে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাস বাসলীগণে।। ৪

কহূরাগ ।। একতালী ।।

১৪৬ – আতী বুঢ়ী না দেখোঁ নয়নে

আতী বুঢ়ী না দেখোঁ নয়নে। জায়িতেঁ নারোঁ ত্বরিত গমনে।।
পথ হারাইলোঁ বৃন্দাবনে। তোহ্মাক তেজিলোঁ তেকারণে।। ১
তোহ্মে মোরেঁ না করিহ রোষে। একসরী ভৈলাঁ দৈবদোষে।। ধ্রু
তোহ্মে গেলা আহ্মার আগে। দৈবযোগে কাহ্ন পায়িল লাগে।।
তোহ্মে দুখ না ভাবিহ মনে। আপণা রাখিএ আপণে।। ২
হের তোর চুম্বওঁ বদনে। তোহ্মে মোর দুয়জ পরাণে।।
তোক পাআঁ জীলোঁ একবারে। বিধি মোর করিল নিস্তারে।। ৩
না দেখিআঁ তোর আভরণে। যদি মোরেঁ পুছে আইহনে।।
তবেঁ কি বুলিব তার পাশে। গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
গুজ্জরীরাগ ।। রূপক ।।

১৪৭ – যমুনার তীরে কদমের তলে

যমুনার তীরে কদমের তলে কাঞ্চুলী ভিজিআঁ গেল ঘামে।
হংসে যেহ্ন সরোবর বিগুতিল বড়ায়ি ল তেহ্ন রাধা বিগুতিলে কাহ্নে।। ১
বুলিহ বুলিহ বড়ায়ি আইহনের ঘরে। কাহ্নাঞিঁ রহাইল দানের ছলে।। ধ্রু
হার কেয়ূর আর যত আভরণ সব নিলে কাহ্নঞিঁ মোর বলে।
যতেক যতেক তার আছিল মনের সন্তাপ সুঝায়িল নিকুঞ্জতলে।। ২
বাহু মোর মোড়িআঁ বলয় সব ভাঁগিলেক ভাঁগিলেক তনের আঞ্চলে।
শুন পান্তরে কাহ্নাঞিঁ লাগ পাইল বলেঁ নিআঁ করিলেক কোলে।। ৩
আনেক প্রকারেঁ কাকুতী করিল না দিলোঁ সুরতীর আশে।
এহি তত্ত্ব বুইলোঁ এবেঁ জাই নিজ ঘর গাইল বড়ু চণ্ডীদাসে।। ৪
দেশাগরাগ ।। রূপক ।।